TMC Bengal: শিরদাঁড়া নিয়ে ফেসবুকে কল্যাণ ব্যানার্জির পোস্টের পরেই পোস্ট করলেন কুণাল ঘোষ

আজকাল ওয়েবডেস্ক: কবিতা যখন হাতিয়ার এবং বাগযুদ্ধ অব্যাহত।

তবে এবার সরাসরি নাম করে নয়। ঘুরপথে, মানব শরীরের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ নিয়ে। অঙ্গটির নাম, শিরদাঁড়া। যা বেঁকে গেলে মানবসমাজে 'কুঁজো' বলে পরিচিত হতে হয় এবং থেকেও যা না থাকলে লোকে একটু ঘৃণামিশ্রিত চোখেই দেখে। একটি কুঁজোর চরিত্র নিয়ে ভিক্টোর হুগোর লেখা অসাধারণ একটি উপন্যাসও আছে, দ্য হাঞ্চব্যাক অফ নোৎরদাম।
আপাতত বঙ্গ রাজনীতিতে এই অঙ্গটি একটি চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে এবং যা নিয়ে রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের দুই সিনিয়র নেতা ফেসবুকে পোস্টও করেছেন। দুটি কবিতায় শিরদাঁড়ার গুণাগুণ ব্যাখ্যা করেছেন তাঁরা। তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি এবং রাজ্য তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। যদিও কেউ কারও নাম করেননি। কিন্তু কল্যাণের পোস্টের পরেই কুণালের পাল্টা পোস্টে স্বাভাবিকভাবেই রাজনৈতিক মহলে তৈরি হয়েছে কৌতূহল। তাহলে কি বাগযুদ্ধ অব্যাহত? 

আরও পড়ুন: পুরসভা ভোটের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ ২০২৪ লোকসভা! বলে দিলেন সৌগত রায়  


শুক্রবার বিকেলে কল্যাণ তাঁর ফেসবুক ওয়ালে একটি পোস্ট করেন। যাতে লেখা আছে, 'মানুষ থেকেই মানুষ আসে, বিরুদ্ধতার ভিড় বাড়ায়; আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়।' কবিতাটির নীচে কবির নামও উল্লেখ করে দিয়েছেন সাংসদ। সাংসদের এই শিরদাঁড়া বিষয়ক পোস্টটি ঘিরে নেটিজেনদের থেকে এসেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অনেকে যেমন সমর্থনও করেছেন তেমনি সমালোচনাও করেছেন কেউ কেউ। এর কিছুক্ষণ পরেই ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন কুণাল। যার বিষয়বস্তুও শিরদাঁড়াই। নাতিদীর্ঘ ১৬ লাইনের এই কবিতায় শেষ দুটি লাইন হল, 'মনুষ্যরূপী এই মানবেরে চেনাটা কঠিন ভাই, অস্থি সমূহ স্থিত নিজস্থানে শিরদাঁড়াটাই নাই।' কবির নাম উল্লেখ করেছেন কুণাল। নেটিজেনদের ভেতর থেকেও এই কবিতাটি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। 
মাত্র কয়েকঘণ্টা আগেই করোনা নিয়ন্ত্রণে ডায়মন্ডহারবারের তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ এবং দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জির বক্তব্যকে ঘিরে বাগযুদ্ধে মেতে উঠেছিলেন এই দুই নেতা। আপাতত সরাসরি কেউ কারও বিরুদ্ধে নতুন করে কোনও মন্তব্য না করলেও শুক্রবার বিকেলের পর তাঁদের এই শিরদাঁড়া সংক্রান্ত পোস্ট কিন্তু কৌতূহলকেই উসকে দিল। তবে কি এবার ঘুরপথে?
 

আকর্ষণীয় খবর