আজকালের প্রতিবেদন: রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনে বিজেপি মুখ থুবড়ে পড়তেই শুরু হয়ে গেল দল ছাড়ার হিড়িক। জেলায় জেলায় বিজেপি–র নেতা–কর্মীরা দলে দলে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে। সোমবারও বজায় থাকল তার ধারাবাহিকতা। এদিন পূর্ব বর্ধমান, পুরুলিয়া, হুগলির আরামবাগ থেকে কয়েক হাজার কর্মী–সমর্থক তৃণমূলে যোগ দিলেন। 
পূর্ব বর্ধমানেই যোগ দিয়েছন প্রায় ৫০ হাজার বিজেপি কর্মী–সমর্থক। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে আরামবাগের বিভিন্ন এলাকায় কর্মী–সমর্থকরা বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করছেন। এদিন বেশ কয়েক জয়গায় বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন কয়েকশো কর্মী–সমর্থক। পুরুলিয়ার কাশীপুরে বিজেপি–র যুব মোর্চার সহ–সভাপতি বুবাই হাজরা–সহ ৩০টি বিজেপি পরিবার বিধায়ক স্বপন বেলথরিয়ার হাত ধরে ইতিমধ্যেই তৃণমূলে যোগদান করেছে। এদিন বিজেপি–র বুথ সভাপতি পিন্টু লোহার–সহ বিজেপি সমর্থক ৪৬টি পরিবার যোগদান করল তৃণমূলে। অন্যদিকে, পুরুলিয়ার পাড়া বিধানসভার দুবরা অঞ্চলের একটি স্পঞ্জ আয়রন কারখানা থেকে ৩০০ জন শ্রমিক বিজেপি ছেড়ে যোগ দেন তৃণমূলে। এদিন দলে যোগদানকারীদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন বিধায়ক উমাপদ বাউরি।
রবিবার সন্ধেয় গলসির উচ্চগ্রামে প্রায় ২০০ বিজেপি কর্মী–সমর্থক তৃণমূলের জেলা পরিষদের সহ–সভাধিপতি দেবু টুডুর হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা নিয়ে দলে যোগ দিয়েছেন। বিজেপি ছেড়ে আসা এই কর্মী–সমর্থকরা জানান, অকারণে এনআরসি নিয়ে আতঙ্ক ছড়াতে চাইছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। এ জন্য আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এ নিয়ে বিজেপি–তে চরম বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে বলে তাঁদের অভিযোগ। এদিকে, ‌রবিবার সন্ধেয় খানাকুলের ঘোষপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পিলখাঁ থেকে শতাধিক বিজেপি কর্মী প্রদীপ পোড়েল, তপন পোড়েলের নেতৃত্বে তৃণমূলে যোগদান করেন। তৃণমূল নেতা অভিজিৎ বাগ, হায়দর আলি, সন্দীপ বর প্রমুখ তাঁদের হাতে তৃণমূলের দলীয় পতাকা তুলে দেন।
 

জনপ্রিয়

Back To Top