আজকালের প্রতিবেদন: স্কুলের মধ্যে পড়ুয়াদের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখার দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের। নিরাপত্তা নিয়ে সরকারের যে নির্দেশাবলি রয়েছে, তার ব্যতিক্রমী কিছু ঘটলে স্কুলশিক্ষা দপ্তর ব্যবস্থা নেবে। কারমেল জুনিয়র স্কুলের ঘটনায় এ কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি। একই সঙ্গে তিনি বলেন, স্কুলের মধ্যে যৌন নিগ্রহের ঘটনা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। দোষ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত কঠোর শাস্তি পাবে। প্রসঙ্গত, স্কুলটি মধ্যশিক্ষা পর্ষদ অনুমোদিত মিশনারি স্কুল।
শুক্রবার কারমেল জুনিয়র স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ ওঠে স্কুলেরই এক নাচের শিক্ষকের বিরুদ্ধে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‌স্কুলের ভেতর ছাত্রছাত্রীদের নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের। বিশেষ করে যে স্কুলে ছাত্রীরা পড়ে, সেখানে তাদের নিরাপত্তা দেওয়ার কাজ পুরুষদের হাতে থাকা বাঞ্ছনীয় নয়। এ নিয়ে অনেকবার গাইডলাইন তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি নিরাপত্তা নিয়েও একটি গাইডলাইন দেওয়া হয়েছে। এই স্কুলে তার যদি ব্যতিক্রম হয়, নিশ্চয়ই সরকার দেখবে। স্কুলশিক্ষা দপ্তর ব্যবস্থা নেবে।’‌ প্রসঙ্গত, অক্টোবরের শেষে জারি করা ওই নির্দেশিকায় পড়ুয়াদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার জন্য কমিটি গঠনের কথা বলা হয়েছে। যৌন নিগ্রহের মতো অভিযোগ উঠলে পকসো আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা হয়েছে। সিসি টিভি লাগানো এবং বেসরকারি স্কুলে চুক্তির ভিত্তিতে কাউকে নিয়োগ করা হলে তার পুলিস ভেরিফিকেশনেরও উল্লেখ রয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষকে কী ডাকা হবে?‌ সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‌আশা করি স্কুল ব্যবস্থা নেবে। যদি না নেয়, তখন নিশ্চয়ই আমরা দেখব।’‌ স্কুলের মধ্যে এই ধরনের ঘটনা কেন ঘটবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শিক্ষামন্ত্রী। বলেন, ‘‌এই ধরনের স্কুলগুলির শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে, বিশেষ করে মেয়েদের স্কুলে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত।’‌ নিরাপত্তা নিয়ে বলেন, ‘‌স্কুলগুলিকে বারবার সতর্ক করা হচ্ছে। ছাত্রছাত্রী, বিশেষ করে ছাত্রীদের নিরাপত্তার দিকে নজর দিতে বলা হচ্ছে। সিসি টিভি ক্যামেরা যদি বাইরে থাকে, তা হলে স্কুলের ভেতরেও থাকা উচিত।’‌ তবে সিসি টিভি–র সংখ্যা বাড়ালেই যে সমস্যার সমাধান হবে, এমনটা মনে করেন না শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘‌মনের বিকার ঘটলে সিসি টিভি লাগিয়ে কিছু হবে না। দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীর সঙ্গে এই ঘটনা বিকৃত মনের পরিচয়। অভিযোগ যদি সত্যি হয়, দোষীর কঠোর শাস্তি হওয়া দরকার।’

জনপ্রিয়

Back To Top