আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বিজেপি কর্মী গোপাল মজুমদারের মাকে নির্মমভাবে মারধরের ঘটনায় সরব সবমহল। বাংলায় নারী সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন বিরোধী নেতা–নেত্রীরা। যন্ত্রণাকাতর বৃদ্ধা এই ঘটনার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। যদিও বিজেপির তোলা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে তৃণমূলের তরফে।  
গত শনিবার রাত দেড়টা নাগাদ উত্তর দমদম পুরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের নিমতা পাটনা স্কুল রোডে এই ঘটনা ঘটে। বিজেপি কর্মী গোপাল মজুমদারের অভিযোগ, তিনজন তৃণমূল কর্মী তাঁদের বাড়িতে জোর করে ঢুকে পড়ে। তাঁকে বন্দুকের বাঁট দিয়ে মারধর করা হয়। তখনই গোপালবাবুর মা অভিযুক্তদের বাধা দিতে গেলে বৃদ্ধাকেই নাকি মারধর করে শাসকদলের কর্মীরা। নাক–মুখ ফুলে যায় তাঁর। ৮৫ বছরের অসুস্থ বৃদ্ধা শুভা মজুমদারের দাবি, ‘‌তৃণমূলের লোকজন আমার ছেলেকে মারধর করেছে। আমাকে ঘাড়ধাক্কা দিয়েছে। আমার শারীরিক অসুস্থতা দেখেও রেয়াত করেনি।’‌ ‌সেদিন রাতেই বিজেপি কর্মী এবং শুভাদেবীকে হাসপাতালে নিয়ে যায় নিমতা থানার পুলিশ। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। ইতিমধ্যেই এই ঘটনার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন গোপালবাবু। আচমকা মারধরে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বৃদ্ধা। যাঁরা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে, তাঁদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।
বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত বলেছেন, ‘‌বাংলার রাজনীতি এখন হিংসার রাজনীতি। একজন বৃদ্ধা ও তাঁর বিজেপি কর্মী পুত্রকে মারধর করা হয়েছে। যা পরিস্থিতি তাতে বাংলায় এখন সত্যিই পরিবর্তন দরকার।’‌ রাজ্য বিজেপি মহিলা মোর্চার সভাপতি অগ্নিমিত্রা পল বলেছেন, ‘‌তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। রাত দেড়টার সময় আমাদের দলীয় কর্মীর বাড়িতে হামলা করা হয়েছে। অত্যন্ত নিন্দনীয় ঘটনা।’‌ নির্বাচনের আগে রাজ্যবাসীর সুরক্ষা নিয়েও প্রশ্ন তুলে দিয়েছে বিজেপি। টুইটারে সরব বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীও। তিনি লেখেন, ‘‌নিজেকে বাংলার মেয়ে বলে দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী। আর তার শাসনেই বাংলার মায়েরা আজ অসুরক্ষিত। তাই বাংলার মা–বোনেদের সম্মান ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে প্রয়োজন আসল পরিবর্তন।’‌ ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে নিমতা থানা ঘেরাও করেছেন বিজেপি কর্মী–সদস্যরা। নির্বাচন কমিশনের কাছে এ নিয়ে চিঠিও দিয়েছে মহিলা কমিশন। তৃণমূলের দিকে অভিযোগের আঙুল ওঠায় মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি সাফ জানিয়ে দেন, ‘‌ঘৃণার রাজনীতির খেলায় মেতেছে বিজেপি। নিমতার বৃদ্ধা পারিবারিক হিংসার শিকার। তাঁর কষ্টকে রাজনৈতিক কারণে ব্যবহার করে বিজেপি বুঝিয়ে দিল এরা কারও কথা ভাবে না। বিজেপির শুধু ক্ষমতার লোভ রয়েছে। আর জানে মানুষকে ব্যবহার করতে।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top