Congress: ‌‌বঙ্গসন্তানের হাতে নাগাল্যান্ডে ভোটের দায়িত্ব দিল কংগ্রেস

বিভাস ভট্টাচার্য: নাগাল্যান্ডে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেসের হয়ে দায়িত্ব সামলাবেন বঙ্গসন্তান রণজিৎ মুখার্জি। ভোট প্রচার থেকে প্রার্থী বাছাই, সবেতেই বড় ভূমিকা পালন করবেন তিনি। কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল প্রসূন মুখার্জির পুত্র তিনি। রণজিৎ ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় আছেন আরও এক বঙ্গসন্তান, উত্তরবঙ্গের প্রাক্তন বিধায়ক এবং কংগ্রেস নেতা শঙ্কর মালাকার। তিনি আছেন প্রার্থী বাছাই কমিটিতে। 
কলকাতায় জন্ম এবং ছাত্রজীবনে কংগ্রেসে যোগ দেওয়া রণজিতের সরাসরি রাজনীতিতে প্রবেশ ২০১৩ থেকে। মিজোরাম এবং ছত্তিশগড়ে কংগ্রেসের জুনিয়র দলের সদস্য হিসেবে ভোটের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে সিকিমে দলের হয়ে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ২০১৩ থেকেই সংগঠনের কাজ ভালভাবে সামাল দেওয়ার জন্য দিল্লি নেতৃত্বের নজরে পড়ে যান। ২০১৯–এ লোকসভা ভোটে দুর্গাপুর থেকে লড়ে হেরে যান। ২০১৭তেই এআইসিসির সদস্য পদ লাভ এবং ২০২১ থেকে এআইসিসিতে সম্পাদক হিসেবে উত্তরণ। এইমুহূর্তে দলের হয়ে নাগাল্যান্ড এবং পড়শি রাজ্য ত্রিপুরার দায়িত্ব পেলেও আপাতত তিনি মন দিয়েছেন নাগাল্যান্ডে। সেখানে সংগঠনের মূল দায়িত্বে তিনি আছেন। 
এরাজ্যের  মতোই কি নাগাল্যান্ডবাসী ভোট নিয়ে এতটা ভাবেন? রণজিৎ বলেন, ‘‌অবশ্যই ভাবেন এবং তাঁরা যথেষ্ট রাজনীতি সচেতন।

’‌ ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করেছে, আগামী ফেব্রুয়ারিতে নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা এবং মেঘালয়ে বিধানসভা নির্বাচন। নাগাল্যান্ডে কি কংগ্রেসের ভোট প্রচার শুরু হয়েছে? রণজিৎ জানিয়েছেন, শুরু হয়েছে। তবে এখানে রাজনৈতিক সভা শুরু হয় সকাল সাতটা থেকে। বিকেলের মধ্যেই সব শেষ। কারণ, প্রচন্ড ঠান্ডায় সন্ধে সাতটার মধ্যেই রাস্তা ফাঁকা হয়ে যায়। 
একসময় নাগাল্যান্ডে কংগ্রেসের সরকার থাকলেও গত ১০ বছর ধরে নাগাল্যান্ডে কোনও কংগ্রেস বিধায়ক নেই। এবার কি এই বঙ্গ সন্তানের হাত ধরে কংগ্রেস ঘুরে দাঁড়াতে পারবে? আশাবাদী এই তরুণ নেতা বলেন, ‘‌পুরোপরি ঝাঁপিয়ে পড়া হয়েছে। ছোট ছোট সভা করে শুনে নেওয়া হচ্ছে কর্মীদের বক্তব্য। প্রার্থী বাছাইয়ে জোর দেওয়া হচ্ছে কর্মী ও এলাকার মানুষের ভাবনাচিন্তার উপর।’‌ ৬০ আসন বিশিষ্ট নাগাল্যান্ডে এবার কংগ্রেস কটি আসনে জিততে পারে? তিনি বলেন, ‘‌মনে রাখতে হবে কংগ্রেস ক্ষমতায় না থাকলেও তার সম্পর্কে কিন্তু একটা আবেগ সাধারণ মানুষের মধ্যে আছে। এই আবেগ এবং যুক্তিকে হাতিয়ার করে আমরা এগোচ্ছি। এটা আদর্শের লড়াই।’‌ 

আরও পড়ুন:‌ রাজ্যের প্রতিটি পুর এলাকায় বসতে চলেছে দূষণ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র

আকর্ষণীয় খবর