বুদ্ধদেব দাস, ঘাটাল, ২৩ সেপ্টেম্বর- দু’‌দিনের সফরে পশ্চিম মেদিনীপুরে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি সোমবার সন্ধেয় সড়ক পথে কোলাঘাটে একটি সরকারি অতিথিশালায় এসে পৌঁছন। সেখান থেকেই মঙ্গলবার ঘাটালের বীরসিংহ গ্রামের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাবেন। সেখানে বিদ্যাসাগরের জন্মের দুই শতবর্ষের অনুষ্ঠানের সূচনা করবেন।
দুপুর আড়াইটে নাগাদ মুখ্যমন্ত্রী পৌঁছে যাবেন বীরসিংহ গ্রামে বিদ্যাসাগর স্মৃতি মন্দিরে। সেখানে বাংলার নবজাগরণের দিশারীর জন্ম ভিটেয় শ্রদ্ধা জানাবেন তিনি। এরপর যাবেন বিদ্যাসাগর প্রতিষ্ঠিত বীরসিংহ ভগবতী উচ্চবিদ্যালয়ে। এখানে বিদ্যাসাগর ও তঁার মা ভগবতী দেবীর আবক্ষ মূর্তি রয়েছে। তঁাদের শ্রদ্ধা জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী যাবেন বীরসিংহ ভগবতী হাইস্কুলের মাঠে মূল অনুষ্ঠানে। এখানে সভা থেকে বেশ কিছু সরকারি প্রকল্পের শিলান্যাস ও উদ্বোধন করবেন। স্কুলছাত্রীদের হাতে সাইকেল–সহ বিভিন্ন সরকারি পরিষেবা তুলে দেবেন। 
সভামঞ্চ থেকেই মুখ্যমন্ত্রী পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সার্বিক উন্নয়নের জন্য ৫৪টি প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন। এই প্রকল্পগুলি রূপায়ণের জন্য খরচ হবে ২৮৬ কোটি টাকা। ৪০টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। এরজন্য খরচ হয়েছে ২৩৩ কোটি টাকা। শিলান্যাস করা হবে একাধিক জল সরবরাহ প্রকল্প, অতিরিক্ত সমষ্টি প্রাণি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের উন্নতিকরণ প্রকল্প, একাধিক কমিউনিটি হলের নির্মাণ প্রকল্প, ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালের সাব স্টেশন নির্মাণ, সবং ব্লকে গণপতি খালের ওপর গোপালপুর থেকে বাসুলিয়া পর্যন্ত রাস্তা তৈরি, পিংলা ব্লকের হারমা উপ–স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ১০ শয্যা বিশিষ্ট উন্নতিকরণ প্রকল্প, গড়বেতা ১ ব্লকে পাটপুরে শিলাবতী নদীর বাঁধ মেরামত, ঘাটালের হরিসিংপুরে বিদ্যুতের সাব স্টেশন তৈরি। বুধবার দুপুরে ডেবরায় প্রশাসনিক সভা করবেন। ডেবরা অডিটোরিয়ামে এই সভা হবে।
অন্যদিকে, উদ্বোধনের তালিকায় রয়েছে ঘাটাল ব্লকের মোহনপুরে পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্প, দাসপুর–২, কেশপুর, খড়্গপুর ১ ব্লকে কর্মতীর্থ, মেদিনীপুর সদর, গড়বেতা ১ ব্লকে কমিউনিটি প্রকল্প, সবং ব্লকের বড়দায় নতুন রাস্তা। এদিকে মুখ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে সেজে উঠেছে বিদ্যাসাগরের জন্মস্থান ঘাটালের বীরসিংহ গ্রাম। বদলে গেছে রাস্তাঘাট। রাস্তার দু–ধারে লাগানো হয়েছে পথবাতি। বীরসিংহ গ্রামে ঢোকার রাস্তা পিচ দিয়ে চওড়া করা হয়েছে। ঝুলে থাকা ও পুরাতন বিদ্যুতের তার বদল করা হয়েছে। বৃষ্টির জল যাতে সংগ্রশালার দেওয়ালের গায়ে জমে না থাকতে পারে এজন্য নিকাশি নালা করা হয়েছে। বীরসিংহ ভগবতী হাইস্কুল, বীরসিংহ গ্রন্থাগার, বিদ্যাসাগর স্মৃতি মন্দির–সহ বিদ্যাসাগরের নামাঙ্কিত ভবনগুলির আমূল সংস্কারের কাজ হয়েছে। বিদ্যাসাগরের ২০০ তম জন্মদিবসকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই বেশ কিছু কর্মসূচি নিয়েছে ঘাটাল পঞ্চায়েত সমিতি।  বীরসিংহ গ্রামকে নির্মল গ্রাম হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। গ্রামে ১৪৩টি পরিবারে শৌচাগার নেই। সেগুলি করে দেওয়া হয়েছে।

বীরসিংহ গ্রামে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের স্মৃতি মন্দির। ছবি: স্বরূপ মণ্ডল

জনপ্রিয়

Back To Top