আজকালের প্রতিবেদন: আজ নিমতায় যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বুধবার উত্তর দমদমে ৬ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল সভাপতি নির্মল কুণ্ডুকে গুলি করে খুন করা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী নিহত নির্মলের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাবেন। ভোটের ফল বেরোনোর পরেই বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এর আগে তিনি নৈহাটিতে গিয়ে বলেন, ‘‌বিজেপি–‌র গুন্ডারা তৃণমূলের অফিস দখল করছে। তাদের অত্যাচারে অনেকেই ঘরছাড়া।’‌ মমতা ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরাতে গিয়েছিলেন। বলেছেন, ‘‌যেখানেই অত্যাচার হবে সেখানেই তিনি যাবেন।’‌
খুনের ঘটনায় অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে নিমতা এলাকা। মঙ্গলবার রাতেই বিজেপি–র এক কর্মী–সহ দু’‌জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত বিজেপি কর্মী সুমন্ত কুণ্ডু এই ঘটনার মূল চক্রী। ধরা পড়েছে তার সাকরেদ সুজয় দাসও। উদ্ধার হয়েছে একটি ওয়ান শটার, ৩ রাউন্ড কার্তুজ ও একটি বাইক। এদিন, রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য ঘটনাস্থলে যান। তিনি নির্মল কুণ্ডুর পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। পানিহাটি শ্মশানে নির্মলের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে এদিনই। উত্তর ২৪ পরগনার তৃণমূল জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক পানিহাটি শ্মশানে গিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘‌বিজেপি–‌র এই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার জেলার প্রতিটি ব্লকে কালা দিবস পালন করা হবে। সাড়ে তিনটে থেকে চারটে পর্যন্ত তৃণমূলের কর্মীরা বুকে কালো ব্যাজ লাগিয়ে মিছিল করবে।’‌ 
উদয় বসু:‌ বুধবার ব্যারাকপুর কমিশনারেটের ডেপুটি কমিশনার আনন্দ রায় নিমতা থানায় সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, ধৃতদের হুগলির উত্তরপাড়ার গোপন আস্তানা থেকে অস্ত্র–সহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিমতা পটনা ঠাকুরতলার বাসিন্দা নির্মল কুণ্ডুকে খুনের জন্য ভাড়াটে খুনিকে সুপারি দেওয়া হয়েছিল। এলাকায় তোলাবাজি ও বেআইনি কাজের অন্তরায় হয় উঠেছিলেন তিনি। তাই তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হল বলে অনুমান পুলিশের।
এদিকে, খুনের পর থেকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন নির্মলবাবুর স্ত্রী ও ২ মেয়ে। ক্ষুব্ধ ও শোকগ্রস্ত পরিজন ও প্রতিবেশীরা। ঘটনার পরেই এলাকার ২ বিজেপি কর্মীর বাড়ির ওপর ক্ষোভ আছড়ে পড়ে। বুধবার নির্মলবাবুকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে মানুষের ঢল নামে ওই এলাকায়। এ ব্যাপারে বিধানসভার মুখ্য সচেতক তথা পানিহাটির বিধায়ক নির্মলকান্তি ঘোষ বলেন, ‘‌বিজেপি খুনের রাজনীতি শুরু করেছে। বাংলার শান্তিপ্রিয় মানুষ এ সব কিছুতেই মেনে 
নেবেন না।’
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সন্ধেয় নির্মলবাবুর বাড়ির কাছে ২ যুবক বাইকে চড়ে তাঁর কাছে আসে। কিছু বোঝার আগেই তাঁর মাথা লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। আশপাশের লোকজন ছুটে এসে নির্মলবাবুকে রক্তাক্ত অবস্থায় রথতলা জেনিথ নার্সিংহোমে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।‌
অন্যদিকে, নিমতা ১২ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল যুব নেতা নির্মল বালার বাড়ির দেওয়ালে লাগানো ‘‌জয় হিন্দ, বিজেপি জিন্দাবাদ’‌ লেখা একটি পোস্টার উদ্ধার হয়েছে। তাতে আরও লেখা, ‘‌তৃণমূল করলে তাঁর মুণ্ডু কেটে ফুটবল খেলা হবে।’‌ খুনের ঘটনার পর এই পোস্টার উদ্ধারকে ঘিরে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে নিমতা এলাকায়। মঙ্গলবার রাতের অন্ধকারে কে বা কারা এ কাজ করেছে তাদের খোঁজ শুরু করেছে পুলিশ।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top