আলোক সেন ● প্রিয়দর্শী বন্দ্যোপাধ্যায়, বাঁকুড়া ও হাওড়া: ‘‌বিজেপি বিভাজনের রাজনীতি শুরু করেছে। মানুষ এটা মেনে নিচ্ছে না। দিল্লির ভোটের ফলাফল‌ই তার প্রমাণ।’‌ এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এই মন্তব্য করেন। বাঁকুড়া রওনা হওয়ার আগে ডুমুরজলা স্টেডিয়ামের হেলিপ্যাডে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌দিল্লির ফলাফল দেখলেই বোঝা যায় মানুষ এনআরসি, ক্যা, এনপিআর খারিজ করে দিয়েছে। তাই বিজেপির উচিত এগুলি অবিলম্বে প্রত্যাহার করা।’‌ এদিনই জয়ের জন্য মমতা কেজরিওয়ালকে ফোনে অভিনন্দন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘‌বাঁকুড়া আসার আগে আমি কেজরিওয়ালকে ফোন করেছিলাম। উনি আমাদের বন্ধু। ওঁকে বলেছি আপনাকে অনেক অভিনন্দন। বিজেপিকে যোগ্য জবাব দিয়েছেন।’‌ মমতা এদিন বলেন, ‘‌দিল্লির নির্বাচনে জিততে বিজেপি সর্বশক্তি প্রয়োগ করেছিল। সব নেতা–‌মন্ত্রী প্রচারে নেমেছিলেন। টাকা ছড়িয়েছিল। মিডিয়াকে ব্যবহার করেছিল। তার পরেও ভোটের ফলাফলে তারা ভো–‌কাট্টা হয়ে গেছে। এবার সারা দেশ থেকে ওদের নিশ্চিহ্ন হওয়ার পালা। মহারাষ্ট্রে, ঝাড়খণ্ডেও হেরেছে। উত্তরপ্রদেশ, কর্ণাটক ছাড়া ওদের হাতে আর কোনও বড় রাজ্য নেই। যে সব প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওরা ক্ষমতায় এসেছিল, তা একটাও রক্ষা করতে পারেনি। কয়েকদিন আগে বাজেট পেশ করেছে। তাতে দেশের গরিব ও সাধারণ মানুষের জন্য কোনও সুখবর নেই। দেশের জাতীয় সম্পদ ওরা বিক্রি করতে নেমেছে।’‌ মমতা এদিন বলেন, ‘‌মানুষ খাদ্য চায়, কর্মসংস্থান চায়। কিন্তু বিজেপি সেগুলি দিতে ব্যর্থ। বিজেপির উচিত উন্নয়নে মন দেওয়া। অর্থনীতির পুনরুদ্ধার করা, ব্যাঙ্কে টাকা রেখেও মানুষ নিরাপদে থাকতে পারছে না। আতঙ্কে রয়েছে।’‌ আপের জয়কে আঞ্চলিক দলের সাফল্য বলে উল্লেখ করে মমতা বলেন, ‘‌যেখানে আঞ্চলিক দল নেই, সেখানে আমরা একসঙ্গে লড়াই করছি।’‌ মমতা কেজরিওয়ালের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেন।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top