রিনা ভট্টাচার্য- রাজ্যের কেউ যেন না খেয়ে মারা না যান। কেউ যেন অভুক্ত না থাকেন। জেলাশাসক, পুলিশ সুপারদের এর দায়িত্ব নিতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।
সোমবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সব জেলার জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, সব জেলার সিএমওএইচ–দের সঙ্গে বৈঠক করেন। ছিলেন সব দপ্তরের সচিব এবং চিকিৎসকদের গঠিত টাস্ক ফোর্সের সদস্যরা। 
সেখানে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অত্যন্ত গরিব মানুষদের জন্য ৫ কেজি করে চাল দেওয়ার বিশেষ ব্যবস্থা করেছে রাজ্য সরকার। প্রায় ১৬ লক্ষ হতদরিদ্র মানুষকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ভিনরাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের ধরলে তা ২০ লক্ষ ছাড়াবে। তিনি বলেন, ‘‌অনেকের হয়তো রেশন কার্ড নেই। আবার ঘরেও চাল, গম নেই। তাঁদের অস্থায়ী রেশন কার্ড দিতে খাদ্য সচিব মনোজ আগরওয়ালকে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘‌দ্রুত এবং সহজে এই কার্ড পৌঁছে দিতে হবে। থানার আইসিও দিতে পারেন। যেটা সুবিধা হবে সেটাই যেন করা হয়।’‌
মুখ্যমন্ত্রী বলেন, কেউ যাতে অনাহারে না থাকেন সেটা নিশ্চিত করতে জেলাশাসকের হাতে থাকা বিশেষ ত্রাণ‌ থেকে খাদ্যশস্য দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। সাধারণত প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা বিপর্যয় ঘটলে জেলাশাসকের হাতে সেই বিশেষ ক্ষমতা দেওয়া থাকে।‌
প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী কিছুদিন আগেই ঘোষণা করেছেন, রাজ্যের ৭ কোটি ৮৫ লক্ষ মানুষ, যাঁদের ডিজিটাল রেশন কার্ড আছে তাঁদের প্রত্যেককে মাথাপিছু ২ কেজি চাল, ৩ কেজি গম দেওয়া হবে। ৬ মাস এই ব্যবস্থা চালু থাকবে। এদিন ২০ লক্ষ হতদরিদ্র মানুষকে অতিরিক্ত ৫ কেজি চাল দেওয়া হচ্ছে। 
মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দেন, প্রয়োজনে ভবঘুরে, ফুটপাথবাসীদের নাইট শেল্টারে রেখে খাওয়াতে হবে। কমিউনিটি কিচেন খুলে খিচুড়ি দিতে হবে। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলির সাহায্যও নেওয়া যেতে পারে।
বয়স্ক মানুষ বা যাঁরা দোকানে যেতে পারছেন না, তাঁরা চাইলে খাবার হোম ডেলিভারি করতে হবে। এই ব্যবস্থা চালু করতে হবে পুলিশকে। যাঁরা হোম ডেলিভারি করেন, তাঁদের ফের কাজ শুরু করতে অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী। পুলিশি সহযোগিতা ও পাসের আশ্বাস দেন। শিশুদের জন্য যাতে দুধের অভাব না হয় তারও জন্য ব্যবস্থা করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।
সামনে পয়লা বৈশাখ, বাংলার নববর্ষ। অথচ কেন্দ্রের নির্দেশে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন। কিন্তু রাজ্যের মানুষকে নববর্ষ পালনে কিছু ছাড় দেওয়া হবে। ছাড় সম্পর্কে ১৩ এপ্রিল জানিয়ে দেওয়া হবে।‌‌
ভিনরাজ্যের প্রায় ৪০ হাজার শ্রমিক বাংলায় আটকে গেছেন। আন্তঃরাজ্য সীমানা বন্ধ। তাই জেলাশাসকদের মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ, তাঁদের থাকা–খাওয়ার যেন কোনও সমস্যা না হয়। রবিবারই মুখ্য সচিব রাজীব সিনহা বলে দেন, শ্রমিকদের কাছ থেকে এক মাসের ভাড়া নেওয়া যাবে না। মুখ্যমন্ত্রী এদিন জানিয়ে দেন, এ রাজ্যের প্রায় ২ লক্ষ মানুষ ভিনরাজ্যে আটকে। তাঁদের পাশে দাঁড়াতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি নিজে ১৮টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছিলেন। এবার মুখ্য সচিবও চিঠি লিখবেন।‌‌‌‌

 

নবান্নে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার। ছবি: আজকাল

জনপ্রিয়

Back To Top