সোহম সেনগুপ্ত: ভূত তাড়ানোর নামে বধূকে খাওয়ানো হল পায়রার রক্ত!‌ সেই সঙ্গে ঝাড়ু দিয়ে নাগাড়ে মার। সারারাত ধরে যজ্ঞ করার পর এক তান্ত্রিকের কীর্তি মধ্যমগ্রামের সাহেব বাগানে। দীপা বাড়ুই নামে এক গৃহবধূ ও এক নাবালকের ওপর এই অত্যাচার নিয়ে এখন সরগরম এলাকা। 
দীপার প্রতিবেশী ১৫ বছরের এক নাবালককেও একই রক্ত খাওয়ানো হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি দীপার শাশুড়ির মৃত্যু হয়। তারপর থেকেই দীপা অসুস্থ হয়ে পড়েন। শাশুড়ির আত্মা নাকি কখনও দীপা কখনও–বা ওই নাবালকের ঘাড়ে ভর করে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ভূত ভর করায় দীপা নাকি ওই নাবালককে বেশ কয়েকবার কামড়ানোরও চেষ্টা করেন। এরপর দুই পরিবার নিউ ব্যারাকপুর থেকে মহিলা তান্ত্রিক আনার ব্যবস্থা করেন। সারারাত সাহেব বাগানে মাইক–বক্স লাগিয়ে ভূত তাড়ানোর নামে চলে যজ্ঞ। যজ্ঞের সময় নিয়ে আসা হয় একটি পায়রাও। যজ্ঞ–শেষে পায়রাটিকে মেরে দীপা ও ওই নাবালককে পায়রার রক্ত খাওয়ানো হয়। সেই সঙ্গে চলে ঝাড়ু ও নিমপাতা দিয়ে একনাগাড়ে মারও। মারের চোটে অচৈতন্য হয়ে পড়েন দীপা। অসুস্থ হয়ে পড়ে নাবালকও। তান্ত্রিক পরিষ্কার জানিয়ে দেন ঝাড়ফুঁক, যজ্ঞ ও পায়রার রক্ত খাওয়ানোর ফলে ভূত পালিয়ে গেছে। কোনও অবস্থাতেই তাদের চিকিৎসকের কাছে না নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে যান ওই তান্ত্রিক। একই সঙ্গে দু’‌জনকে ঘরবন্দি করে রাখারও নিদান দেন তিনি। এদিনের এই ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায় ওই এলাকায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল ঘুরে আসে পুলিসও। পুলিস জানিয়েছে, কুসংস্কারের প্রভাবেই এমন ঘটনা। তবুও বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

জনপ্রিয়

Back To Top