নিরুপম সাহা, বনগাঁ, ৫ ফেব্রুয়ারি- ভারতে এসে প্রতিবেশী যুবককে কিডনি দান করার আগেই কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে পালানোর চেষ্টা করল এক বাংলাদেশি যুবক। যদিও শেষ পর্যন্ত পুলিসের হাতে ধরা পড়ে যায় সে। রবিবার রাতে বনগাঁ থেকে গ্রেপ্তার হওয়া আইনুল হক সর্দার নামে ওই যুবককে।
পুলিস সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের বাসিন্দা লুৎফর হোসেন তাঁর বছর কুড়ির ছেলে মহম্মদ তারিক হোসেনের কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য ভারতে আসেন। কিডনি দাতা হিসেবে সঙ্গে আসেন তাঁদেরই আত্মীয় আইনুল হক সর্দার নামে ওই যুবক। কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে কিডনি প্রতিস্থাপন হওয়ার কথা ছিল। তাঁরা ৩৩/এ/‌বি ‌দীনেশ নগরে একটি ঘর ভাড়া নিয়েছিলেন। শনিবার আইনুল কিডনি দান করার আগেই রোগীর কাছে থাকা ডলার, ভারতীয় এবং বাংলাদেশি টাকা মিলিয়ে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা এবং ২টি মোবাইল হাতিয়ে পালিয়ে যায়। ওই দিনই রোগীর বাবা আইনুলের পাসপোর্টের ছবি দিয়ে পূর্ব যাদবপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। আইনুল পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশ পালাতে পারে বলে ধারণা করে তাঁর ছবি–সহ বনগাঁ থানায় মেসেজ পাঠায় পূর্ব যাদবপুর থানা। পুলিস তদন্তে নেমে রবিবার সকালে মুজিবর মণ্ডল নামে এক বাংলাদেশিকে সোনারপুর থেকে গ্রেপ্তার করে। সে এই কাজে আইনুলকে সাহায্য করছিল। মুজিবরকে জেরা করে সরজিৎ দাস নামে একজনের কথা জানতে পারে পুলিস। এই সরজিৎই আইনুলকে বাংলাদেশ পালাতে সাহায্য করছিল বলে জানায় মুজিবর।            

ধৃত আইনুল হক এবং সরজিৎ দাস। ছবি:‌ প্রতিবেদক‌

জনপ্রিয়

Back To Top