‌সুখেন্দু আচার্য, কল্যাণী: শনিবার রাতে কল্যাণী শহরের ১ নম্বর ওয়ার্ডে তৃণমূলের পার্টি অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল বিজেপি–র বিরুদ্ধে। তৃণমূল কর্মীদের বাইকে আগুন, দুটি গাড়ি ভাঙচুর হয়েছে। বোমা–গুলিও চলছে। ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে বহু মানুষ এলাকা ছাড়া। কল্যাণী শহর তৃণমূল সভাপতি অরূপ মুখার্জি অভিযোগ করেছেন, এই সব ঘটনার সঙ্গে বিজেপি কর্মী এবং দুষ্কৃতীরা যুক্ত। যদিও এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূল দুষ্কৃতীরা যুক্ত বলে পাল্টা অভিযোগ করেছে বিজেপি। 
ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে অরূপ মুখার্জি বলেন, ‘‌শনিবার দলের মিটিং ছিল কৃষ্ণনগরে। সেখানে থাকার সময় কল্যাণী থেকে ফোন পাই যোগেন্দ্র কলোনির আমাদের কর্মী বিপুল বৈদ্যকে বিজেপি মারধর করেছে। তঁার বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। তাই কৃষ্ণনগর থেকে ফিরে রাত সাড়ে ন’‌টা নাগাদ বিপুলের বাড়ি যাই। তঁাকে বলে আসি পুরো বিষয়টি কল্যাণী থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ করতে। পাশাপাশি কল্যাণী থানার আইসি–কে ফোনে বলি যোগেন্দ্র কলোনিতে একটা গন্ডগোল হয়েছে দেখুন। গাড়ি করে ফেরার পথে রাস্তায় খবর পাই, সমীর বলে আমাদের এক কর্মীকে বেধড়ক মারধর করছে বিজেপি। গাড়ি ঘুরিয়ে আবার ঘটনাস্থলে যাই, দেখি প্রচুর বিজেপি কর্মী। তারা আমায় দেখে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। আমার সঙ্গে থাকা কর্মীদের ঘিরে ধরে। লাঠি, রড, বোমা নিয়ে আক্রমণ করে। গুলিও চালায়। আমরা কোনও রকমে প্রাণ নিয়ে পালাই। ওরা আমাদের পার্টি অফিসের সামনে থাকা ৯টি বাইকে আগুন ধরিয়ে দেয়। দুটি গাড়ি ভাঙচুর করে। তঁার আরও অভিযোগ, কল্যাণীতে বিজেপি জেতার পর সন্ত্রাস শুরু করেছে, ভয় দেখাচ্ছে। আমরা পুলিশের কাছে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করিছি।’‌
অন্যদিকে, অরূপের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে জেলা বিজেপি সভাপতি তথা রানাঘাটের সাংসদ জগন্নাথ সরকার জানিয়েছেন, তৃণমূল এলাকা দখল করতে এসেছিল। তাদের আমাদের কর্মী ও সাধারণ মানুষ রুখে দিয়েছেন। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে দেখে, বাইকে আগুন দেওয়া হয়েছে। দমকল ডেকে আগুন নেভানো হয়। গন্ডগোলের জন্য কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top