চন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়, কালনা: মোবাইলে কোনও মেসেজ আসেনি। চাওয়া হয়নি কোনও ওটিপি নম্বর। তবু ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও হয়ে গেল ১৭ হাজার টাকা। কালনা শহরের বৈদ্যপুর এলাকার একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের এই ঘটনায় বিস্ময় ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়। ‘প্রতারিত’ অভ্রতনু রায় কালনা পুরসভা এলাকার বাসিন্দা হলেও কর্মসূত্রে থাকেন মুম্বইয়ে। কালনার বৈদ্যপুরের বেসরকারি ব্যাঙ্কের শাখায় তঁার অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আচমকা তঁার মোবাইলে মেসেজ যায়, ১৭ হাজার টাকা তোলা হয়েছে। এরপর তিনি হতবাক হয়ে যান। পরে বাড়িতে যোগাযোগ করেন। বাড়ির কেউ টাকা তুলেছে কিনা জানতে চান। বাড়ির কেউ টাকা তোলেনি নিশ্চিত হয়ে তিনি পুলিশে অভিযোগ জানান। সেই সঙ্গে বিষয়টি ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের নজরে আনেন। 
অভ্রতনুর বাবা অসিতবরণ রায় পেশায় আইনজীবী। তিনি জানিয়েছেন, ছেলে কারও সঙ্গে ব্যাঙ্ক বা এটিএম কার্ডের কোনও তথ্য শেয়ার করেনি। কোনও লিঙ্কেও ক্লিক করেনি। তারপরও টাকা উধাও হয়ে গেল। এই বিষয়টি  ভাবাচ্ছে। অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষও বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে। কারণ যে সমস্ত এটিএম প্রতারণার অভিযোগ আসে, সেগুলির ক্ষেত্রে মূলত প্রতারকরা গ্রাহকদের কাছ থেকে কোনও না কোনও ভাবে এটিএম বা ডেবিট কার্ডের তথ্য জেনে নেয়। এই ক্ষেত্রে তেমনটা না ঘটায় নতুন করে ভাবাচ্ছে সাইবার ক্রাইম বিশেষজ্ঞদের। সেইসঙ্গে অ্যাকাউন্টের তথ্য কোনওভাবে ‘লিক’ হয়েছে কিনা, সেটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top