নিরুপম সাহা, বনগাঁ: শুধু সচেতনতাই নয়, খোকা ইলিশ ধরা বন্ধ করতে এবারে নির্দিষ্ট মাপের জাল তৈরির ব্যাপারে কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছে রাজ্য মৎস্য দপ্তর। এ ব্যাপারে নতুন ভাবনা শুরু হয়েছে বলে জানালেন মৎস্য মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ।
বাঙালির রসনা তৃপ্তিতে অপরিহার্য ইলিশ। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বর্ষার মরশুমে প্রচুর পরিমাণে খোকা ইলিশ ধরা হচ্ছে। স্রোতের উল্টো দিকে ডিম পারতে আসা ইলিশ ধরে ফেলায় ইলিশের পরিমাণ কমছে। ১৫ এপ্রিল থেকে ১৪ জুন ইলিশ মাছের ডিম পারার সময়। ভারতে সমীক্ষা করে তাই এই ৬১ দিনকে ব্যান পিরিয়ড‌ হিসেবে নির্দিষ্ট করা হয়েছে। এই সময়ে সমুদ্র বা নদীতে ইলিশ ধরার উপর বিশেষ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। 
পাশাপাশি ২৩ সেন্টিমিটারের কম মাপের ইলিশ মাছ যাতে ধরা না পড়ে তার জন্য ৯০ মিলিমিটারের কম ফঁাস যুক্ত জাল ব্যবহার করেন, এ নিয়ে মৎস্যজীবীদের সচেতন করা হচ্ছে। মৎস্য দপ্তরের দাবি, ৪–৫ বছর ধরে এই প্রচারে আগের তুলনায় মাছের পরিমাণ বেড়েছে। দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ছোট মাছ ধরা এবং বাজারে বিক্রি না করার নিষেধাজ্ঞা থাকলেও এখনও এ ব্যাপারে আইনি পদক্ষেপ করার ব্যবস্থা চালু হয়নি। তাই এখনও মাছ ধরা এবং খোলাবাজারে বিক্রি চলছে।  এক আধিকারিক জানান, ইলিশ ধরা বন্ধ করার বিষয়ে ট্রলারের উপর নজরদারি চলছে। পাশাপাশি মাঝেমধ্যে বাজারে হানা দেওয়া হচ্ছে। মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ জানান, নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার পর থেকে সমবায়গুলি সেই নির্দেশিকা মেনে চললেও বিক্ষিপ্তভাবে কিছু মৎস্যজীবী এই কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

জনপ্রিয়

Back To Top