নিরুপম সাহা, হাবড়া, ১১ নভেম্বর- প্রকাশ্যে মদ্যপানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন এক গৃহবধূ। নেশাড়ু যুবকরা ঘুসি মেরে মুখ ফাটিয়ে দিয়েছে গৃহবধূর। তঁার শ্লীলতাহানিও করা হয়েছে। এই নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে ভবিষ্যতে ধর্ষণ এবং খুন করার হুমকিও দেওয়া হয়েছে। হাবড়া থানা এলাকার এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত যুবকদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত গৃহবধূ। 
জানা গেছে, হাবড়া থানার জোড়া শিরিষতলা নিবেদিতা রোড এলাকার কয়েকজন যুবক দিনের বেলাতেই প্রকাশ্যে মদ, গাঁজা, হেরোইনের নেশার আসর বসায়। এব্যাপারে নিষেধ করা হলে তারা কারও কথা শোনে না। তারা এলাকার মহিলাদেরকে কটূক্তি করে। সোমবার সকাল ১১টা নাগাদ প্রতিবেশী অমিত রায় ওরফে বাবু এবং মুন্না ফের নেশার আসরে বসে এলাকার মহিলাদের কটূক্তি করতে থাকে। তখনই প্রতিবেশী যুথিকা দে নামে এক গৃহবধূ তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। তিনি ওই যুবকদের অন্যত্র গিয়ে নেশার আসর বসাতে বলেন। এই কথায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওই যুবকরা যুথিকাকে বেধড়ক মারধর করে। তঁার মুখ লক্ষ্য করে সজোরে ঘুসি চালায়। তঁার শ্লীলতাহানিও করে বলে অভিযোগ। ফের কোনওদিন নেশায় বাধা দিলে তঁাকে ধর্ষণ এবং খুন করা হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। বধূর চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্তরা। আহত অবস্থায় বধূকে স্থানীয় বাসিন্দারাই হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে যান। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তিনি হাবড়া থানায় গিয়ে ওই যুবকদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 
আক্রান্ত বধূর অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরেই বাবু, মুন্না–সহ একদল যুবক পাড়ার ভেতরে প্রকাশ্যেই নেশার আসর বসাচ্ছে। এর ফলে এলাকার সুস্থ পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। সে ব্যাপারেই প্রতিবাদ করতে গিয়ে এই পরিণতি। প্রতিবেশী দোলা রায় বলেন, ‘‌এই নেশাড়ু যুবকদের বিরুদ্ধে এখনই কোনও ব্যবস্থা না নিলে এলাকার অন্যান্য স্কুল পড়ুয়া বাচ্চারা নেশায় আকৃষ্ট হতে পারে। তাই আমরা চাই, অবিলম্বে পুলিশ ওই নেশাড়ুদের এলাকা ছাড়া করুক এবং তাদের বিরুদ্ধে কড়া আইনি পদক্ষেপ করুক।’‌

নেশাড়ু যুবকদের আহে আক্রান্ত গৃহবধূ।

জনপ্রিয়

Back To Top