আজকালের প্রতিবেদন- এক মাসের ছুটিতে গেলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস। 
রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর কাছে এক মাসের ছুটির জন্য আগেই আবেদন করেছিলেন তিনি। যা মঞ্জুর হয়েছে। গোটা ফেব্রুয়ারি মাসটাই ছুটিতে থাকবেন সুরঞ্জনবাবু। হঠাৎ ছুটিতে যাওয়া নিয়ে সুরঞ্জনবাবু বলেন, ‘‌একটু শান্তিতে থাকতে চাই। ছাত্র আন্দোলন চলাকালীনই আমার শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়। চিকিৎসকেরা বিশ্রাম নিতে বলেন। তাছাড়া ব্যক্তিগত কিছু কাজও রয়েছে। সেই কারণেই ফেব্রুয়ারি মাসটা ছুটি চেয়ে রাজ্যপালের কাছে আবেদন করেছিলাম।’‌ কবে ফের তিনি কাজে যোগ দেবেন, তা স্পষ্ট করে জানাননি সুরঞ্জনবাবু। বলেন, ‘‌আগে শরীর ভাল হোক। সুস্থ হই। তারপর ঠিক করব।’‌ ছাত্র সংসদ নির্বাচন ঘিরে পড়ুয়াদের ঘেরাও আন্দোলনের জেরে সম্প্রতি এবং গত বছর জুন মাসে সব মিলিয়ে দু থেকে তিনদিন  ক্যাম্পাসে আটকে ছিলেন তিনি। তাঁর সঙ্গে অবশ্য অন্য শিক্ষক, আধিকারিক এবং কর্মীরাও ছিলেন। পড়ুয়াদের এই আন্দোলনের জেরেই কি তাঁর এই সিদ্ধান্ত?‌ এই প্রশ্নের উত্তরে সুরঞ্জনবাবু বলেন, ‘‌গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের আন্দোলন গণতান্ত্রিক রীতিনীতি মেনেই হওয়া উচিত। এ ব্যাপারে আর কিছু বলতে চাই না।’‌ প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের জুলাইয়ের মাঝামাঝি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব নেন সুরঞ্জনবাবু। সেই সময় তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলেন। তিনি ছুটিতে থাকায় আপাতত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন সহ–‌উপাচার্য প্রদীপ ঘোষ। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top