স্বদেশ ভট্টাচার্য, হাসনাবাদ: হাসনাবাদে আক্রান্ত তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধান। এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয় উত্তর ২৪ পরগনার হাসনাবাদের মুরারিশাহ গ্রামে। স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান আবদুল ওয়াহাব গাজিকে দুষ্কৃতীদের হাত থেকে রক্ষা করেন এলাকার তৃণমূল কর্মীরা। অভিযোগের তীর সিপিএমের দিকে। যদিও সিপিএম এই ঘটনার দায় নিতে অস্বীকার করেছে। দলীয় প্রধানের ওপর প্রকাশ্যে হামলার প্রতিবাদে দোষীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে বুধবার সকালে মুরারিশাহ চৌমাথা ন্যাজাট–‌চৈতল–‌বসিরহাট রোড অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল। অবরোধে নেতৃত্ব দেন জেলা পরিষদের শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ ফিরোজ কামাল গাজি, পঞ্চায়েত সমিতির সহ–সভাপতি এসকেন্দার গাজি–সহ ব্লক তৃণমূল নেতারা।
তৃণমূলের অভিযোগ, মঙ্গলবার সন্ধেয় পঞ্চায়েতের কাজ সেরে বাড়ি ফিরছিলেন মুরারিশাহ পঞ্চায়েতের প্রধান আবদুল ওয়াহাব। সেই সময় কয়েকজন সিপিএম আশ্রিত দুষ্কৃতী প্রধানের ওপর চড়াও হয়। তাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। প্রধানকে নিগ্রহ করা হচ্ছে দেখে এলাকার তৃণমূল কর্মীরা ছুটে এসে তঁাকে দুষ্কৃতীদের হাত থেকে বঁাচান। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়। ঘটনায় হতচকিত প্রধান আবদুল ওয়াহাব বলেন, ‘‌এলাকায় উন্নয়নের কাজে বাধা তৈরি করছে সিপিএম। তা সত্ত্বেও পঞ্চায়েতে উন্নয়ন কর্মসূচি থেমে নেই। সেই রাগেই সিপিএমের লোকেরা এই আক্রমণ করেছে।’‌ স্থানীয় সিপিএম বিধায়ক রফিকুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘‌সিপিএমের কেউই এই ঘটনায় যুক্ত নয়। প্রধানের সঙ্গীরা একটি অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছিল। মঙ্গলবার জামিন পেয়ে তারা পটকা ফাটিয়ে উল্লাস করছিল। তখনই নিজেদের দু’‌পক্ষের মধ্যে লেগে যায়।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top