অমিতাভ ভট্টাচার্য, মালবাজার: ‘‌ডুয়ার্সের চা–বাগান ও গ্রামাঞ্চলে মানুষের সঙ্গে বন্যপ্রাণীর সঙ্ঘাত ক্রমাগত বেড়ে চলেছে। সেই সঙ্ঘাত আটকাতে বনকর্মীদের তৎপর হতে হবে। পাশাপাশি মানুষকেও সচেতন করতে হবে। সংরক্ষিত বনাঞ্চলে সাধারণ মানুষ যাতে প্রবেশ না করে, সে কথাও মানুষকে বোঝাতে হবে। প্রয়োজনে বিভিন্ন সংগঠনের সাহায্য নিয়ে একত্রে বন ও বন্যপ্রাণী রক্ষা করতে হবে। মানুষকে বাঁচাতে হবে।’‌ বললেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি। মঙ্গলবার মেটেলি ব্লকের মূর্তিতে মোটরবাইক প্রদান অনুষ্ঠান ছিল। সেখানেই মন্ত্রী এই কথাগুলো বলেন।   
বনকর্মীদের কাজের প্রয়োজনে নানাদিকে ছুটতে হয়। অনেক সময় কিছু এলাকায় কোনও দুর্ঘটনা ঘটলে সেখানে দ্রুত পৌঁছোতে সমস্যা হয়। সেই সমস্যার কথা ভেবে ডাবলুডাবলুএফের সাহায্যে বন্যপ্রাণ বিভাগের ৬টি স্কোয়াডকে ১০টি আধুনিক মোটরবাইক দেওয়া হয়। এদিনের অনুষ্ঠানে বন দপ্তরের মূর্তি টেন্টে মালবাজার, খুনিয়া, রামসাই, বিন্নাগুড়ি, সুকনা–সহ ৬টি স্কোয়াডের হাতে বাইকগুলো তুলে দেন মন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি। বন দপ্তরের আধিকারিকরা জানান, ছোট আকারের কোনও জন্তুকে উদ্ধার করা, জঙ্গলে টহলদারি চালানো ইত্যাদির জন্য মোটরবাইকের মতো যান যথেষ্ট কার্যকরী। সে কথা মাথায় রেখেই বাইকগুলো দেওয়া হয়েছে। 
এদিনের অনুষ্ঠানে হাতি ও বন্যপ্রাণীর চলাফেরার পথে বিভিন্ন চা–বাগান ও শ্রমিক বস্তিগুলোতে ব্লেডের বেড়া দেওয়ার প্রবণতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন রাজীব ব্যানার্জি। তিনি বলেন, ‘‌অবিলম্বে বনাধিকারিকদের নিয়ে আলোচনা করতে হবে। যাঁরা এই ব্লেড দিয়ে বেড়া দিয়েছেন, তাঁদের চিঠি দিয়ে তা খুলে ফেলার ব্যবস্থা করতে হবে। এতে কাজ না হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে।’‌ সম্প্রতি আলিপুরদুয়ারে এ ধরনের বেড়ায় আটকে ক্ষতবিক্ষত হয়ে একটি চিতাবাঘের মৃত্যু হয়েছিল। আগেও বিভিন্ন সময় এভাবে বন্যপ্রাণীর মৃত্যু হয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানে ছিলেন অতিরিক্ত মুখ্য বনপাল বিপিনকুমার সুদ, উত্তরবঙ্গের মুখ্য বনপাল উজ্জ্বল ঘোষ, ডাবলুডাবলুএফের দীপেন্দু সোনার, গরুমারা ডিভিশনের ডিএফও নিশা গোস্বামী প্রমুখ।

জনপ্রিয়

Back To Top