নিরুপম সাহা,হাবড়া: বৌদির অমতেই ফেসবুকের অ্যাকাউন্টে বৌদির ব্যক্তিগত ছবি পোস্ট করে ব্ল্যাক মেল করার অভিযোগ উঠল দেওরের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেওরের সঙ্গে অশান্তি। অবশেষে অপমানে হাতের শিরা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন বধূ। উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়া থানার শ্রীনগর এলাকার এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বর্তমানে হাবড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ওই গৃহবধূ।
ঘটনার সূত্রপাত মাসখানেক আগে। হাবড়ার শ্রীনগর এলাকার গৃহবধূর মোবাইল ফোনের মেমরি কার্ডটি হঠাৎই হারিয়ে যায়। তার পর থেকেই মাঝেমাঝে সোশ্যাল সাইটে মেমরি কার্ডে থাকা বধূর ব্যক্তিগত ছবি পোস্ট করতে দেখা যায় একটি অপরিচিত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে। এই বিষয়ে প্রথম থেকেই নিজের দেওরের উপর সন্দেহ ছিল ওই গৃহবধূর। এ নিয়ে পরিবারে মাঝে মাঝেই অশান্তি হত। এই ঘটনা নিয়ে গৃহবধূ এবং তাঁর স্বামী আগে একবার দেওরের বিরুদ্ধে পুলিসের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাবে বলে সিদ্ধান্ত নিলে পরিবারের অন্যদের অনুরোধে সেই সময় তাকে রেহাই দেওয়া হয়। শর্ত ছিল, এই ধরনের ঘটনা সে আর ঘটাবে না, নিজেকে শুধরে নেবে ইত্যাদি। অভিযোগ, তারপর থেকেই নানাভাবে গৃহবধূকে ব্ল্যাক মেল করতে থাকে দেওর। 
কিছুদিন ছবি পোস্ট করা বন্ধ থাকলেও ফের মঙ্গলবার গৃহবধূর ছবি সোশ্যাল সাইটে ছাড়া হয়। এক বন্ধু মারফত গৃহবধূ বিষয়টি জানতে পারেন মঙ্গলবার রাতে। আর তাকে কেন্দ্র করে রাতে অশান্তি শুরু হয় বাড়িতে। সেই সময় নিজের ঘরে ঢুকে কাচের গ্লাস ভেঙে, গ্লাসের ভাঙা কাঁচ দিয়ে নিজের হাতের শিরা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। রাত ২টো নাগাদ গৃহবধূকে হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে তঁার পরিবার। এই মুহূর্তে ওই গৃহবধূ হাবড়া হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন। যদিও সামাজিক সম্মানের কথা চিন্তা করে এখনও পর্যন্ত পুলিসের কাছে কোনও অভিযোগ জানানো হয়নি।

জনপ্রিয়

Back To Top