Murshidabad: এই গ্রীষ্মে ‘‌দুয়ারে পানীয় জল’‌ নিয়ে হাজির মুর্শিদাবাদ জেলা প্রশাসন

আজকাল ওয়েবডেস্ক: গরমকাল পড়তেই মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন ব্লকে ভূগর্ভস্থ জলস্তর নামতে শুরু করেছে।

আর তার ফলে অসুবিধার মধ্যে পড়েছেন এই জেলার কয়েক লক্ষ বাসিন্দা। শনিবার থেকে নবান্নের নির্দেশে মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন খরাপ্রবণ ব্লকগুলোতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে জল সরবরাহের কাজ শুরু করল জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর। 

সম্প্রতি নবান্ন থেকে জানানো হয়, রাজ্যের ন’‌টি জেলার ৭২টি ব্লকে জলস্তর মারাত্মকভাবে নেমে গেছে এবং এই সমস্ত এলাকাতে বসবাসকারীরা পানীয় জল এবং অন্যান্য কাজের জন্য জল পেতে সমস্যার মধ্যে পড়ছেন। জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরকে দায়িত্ব দেওয়া হয় খরাপ্রবণ ব্লকগুলিতে গ্রামে গ্রামে গিয়ে ট্যাঙ্কে করে বা পাউচে করে পানীয় জল সরবরাহ করবার জন্য। জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, রাজ্যের মোট ৩৪৩টি ব্লকের মধ্যে ৪২টি ব্লকে জলস্তর ‘‌অত্যন্ত আশঙ্কাজনক’‌ ভাবে নেমে গেছে। এর পাশাপাশি ৩০টি ব্লকের ভূগর্ভস্থ জলস্তরের অবস্থা ‘‌আংশিক আশঙ্কাজনক’‌।

মুর্শিদাবাদ জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, এই গ্রীষ্মে জেলার চারটি ব্লকে জলস্তর ‘‌অত্যন্ত আশঙ্কাজনক’‌ভাবে এবং ১৩ টি ব্লকে ‘‌আংশিক আশঙ্কাজনক’‌ভাবে জলস্তর নেমে গেছে। তাই এই সমস্ত অঞ্চলে বসবাসকারীরা পানীয় জল পেতে প্রচণ্ড সমস্যার মধ্যে পড়ছেন। তাই গ্রামবাসীদের জল সঙ্কট মেটাতে এবার এগিয়ে এল মুশিদাবাদের সুতি ১ ব্লক প্রশাসন। শনিবার সুতি ১ ব্লক প্রশাসনের তরফ থেকে এই ব্লকের বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর ট্যাঙ্কের মাধ্যমে জল সরবরাহ শুরু করেছে। তার ফলে গ্রামে পানীয় জলের সমস্যা অনেকটাই মিটেছে বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসীরা। 
সুতি ১ ব্লকের বিডিও এইচ এম আর হক বলেন, ‘‌গ্রীষ্মকালে গ্রামে ভূগর্ভস্থ জল স্তর নেমে যাওয়ার ফলে অনেক গ্রামে সাধারণ মানুষ জল পেতে সমস্যায় পড়ছেন। তাই জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে গ্রামে গিয়ে পানীয় জল সরবরাহ করতে। শনিবার থেকে সুতির একাধিক গ্রামে আমরা পানীয় জল সরবরাহ শুরু করেছি। গোটা গ্রীষ্মকাল জুড়ে এই কর্মসূচি চলবে।’‌ তিনি আরও বলেন, ‘‌জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর থেকে যে জল সরবরাহ করা হচ্ছে তা আর্সেনিকমুক্ত এবং নিরাপদ।’‌

আকর্ষণীয় খবর