আজকালের প্রতিবেদন: প্রসঙ্গ:‌ লোকসভায়  নুসরত–মিমির প্রার্থী হওয়া।
মন্তব্য ১:‌ ‘‌ওরা যেমন ওদের নিয়ে তেমন আলোচনাই হচ্ছে।’ তৃণমূলের দুই প্রার্থীর চরিত্র নিয়ে কটাক্ষ করে বললেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।
মন্তব্য ২:‌ ‘‌কুকথা নয়, হোক রাজনৈতিক লড়াই। রাজনীতিতে ফিরে আসুক সৌজন্যবোধ।’‌ বললেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। দলে তিনি দিলীপ ঘোষের সহকর্মী। 
শুক্রবার রাজ্য জুড়ে চা–চক্র বা পাড়ার আড্ডা, গুরুগম্ভীর আলোচনা বা চটুল, রাজনীতির আঙিনা বা সোশ্যাল মিডিয়া মিমি–নুসরতই ছিলেন চর্চার মূল বিষয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় কুকথার চাষ হয়েছে। সাংবাদিকরা দিলীপ ঘোষকে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি প্রথমে বলেন, ‘‌আপনাকে–আমাকে নিয়ে তো এমন কথা হচ্ছে না। যার যেমন চরিত্র, তাকে নিয়ে তেমন আলোচনা হয়।’‌ পরে তিনি সংশোধন করে বলেন, ‘‌আমি ওঁদের চরিত্র নিয়ে কিছু বলিনি। আমি ওঁদের ফিল্মি চরিত্র নিয়ে বলছিলাম।’‌ তা জেনে বাবুল বলেন, ‘‌ওঁরা দু’‌জনেই আমার সহকর্মী। আমি চাই না, কেউ ওঁদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করুক। এর আগেও টলিউড–বলিউডের অভিনেতা–অভিনেত্রীরা ভোটে লড়েছেন। পরেও লড়বেন। তাঁদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ আলোচনা করা ঠিক নয়। সোশ্যাল মিডিয়াতেও সেরকম কথা বা ছবি আপলোড করা ঠিক নয়।’‌
দিলীপ ঘোষ কটাক্ষ করে আরও বলেন, ‘ওঁদের নাম শুনে তৃণমূলের লোকেরাই চমকে গেছে। দিদি কি নিজের সৈনিকদের বিশ্বাস করতে পারছেন না?‌ কোথায় সুগত বসু, আর কোথায় মিমি!‌ কোথায় ইদ্রিস আলি, আর কোথায় নুসরত জাহান! ভগবান না করুক, জিতলে ওঁরা বাংলার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন! আমাদের হেমা মালিনী, রূপা গাঙ্গুলি আছেন। রূপা এখন ছবি করেন না। কিন্তু বয়স, অভিনয়ের জোর, জাতীয় পুরস্কার— এসব বিচার করলে মিমি–নুসরতরা এঁদের ধারেকাছে নেই। আমাদের রূপা, লকেট যখন দাঁড়িয়েছিলেন, তখন তাঁদের নিয়েও এমন চর্চা হয়েছিল। ঢিল মারলে পাটকেল তো খেতেই হবে। আর যে যাদবপুরে সোমনাথ চ্যাটার্জি, সুগত বসুর মতো প্রাজ্ঞ, বিদ্বানরা লড়েছেন সেখানে মিমি!‌ উনি বাংলার মুখ না বাংলার রাজনীতির মুখ?’ 
ওদিকে বারাসত আদালতে একটি মামলায় হাজিরা দিতে এসে বাবুল বলেন, ‘মুনমুন সেন শিক্ষিত, রুচিসম্পন্ন। তাঁর থেকেও আমি সৌজন্য আশা করব। আমি মুনমুনকে ২০ বছর ধরে চিনি। ও আমার ভাল বন্ধু। রাজনীতির ময়দানে আমার সঙ্গে মুনমুনের যুদ্ধ হলেও কুকথা হবে না। আমি নিশ্চিত, আসানসোলের ভোট প্রচারে মুনমুনের সঙ্গে আমি এক কাপ কফি খেলে আমার দল অাপত্তি করবে না। অবশ্য তাতে মুনমুনকে দিদি কী বলবেন জানি না।’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top