যজ্ঞেশ্বর জানা, দিঘা: সমুদ্রস্নানে নেমে বেপরোয়া আচরণ করায় দিঘায় গ্রেপ্তার হলেন ১০ পর্যটক। নিউ দিঘার ক্ষণিকা, মেরিনা এবং হলিডে হোম ঘাটগুলো থেকে মঙ্গলবার এদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে অবশ্য জামিনে ছেড়ে দেওয়া হয় তঁাদের।
পর্যটকদের একাংশের নির্বোধ হুল্লোড় আর অর্বাচীনের মতো ব্যবহার ক্রমেই মৃত্যুর তালিকা বাড়িয়ে চলেছে সৈকতে। গত ইদের পর থেকে দিঘায় তলিয়ে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। এছাড়াও মৃত্যুর মুখ থেকে একাধিক জনকে ফিরিয়ে এনেছেন নুলিয়া এবং পুলিশকর্মীরা। রোজ রোজ বাড়তে থাকা এই দুর্ঘটনায় রীতিমতো উদ্বিগ্ন পুলিশ এবং প্রশাসন। পুলিশের দাবি, দুর্ঘটনা নিজে থেকেই ডেকে আনছেন পর্যটকদের একাংশ। পুলিশের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞা না মেনেই পর্যটকরা স্নানে নামছেন। যার জন্যই ঘটছে দুর্ঘটনা। 
দিঘা থানার ওসি বাসুকী ব্যানার্জি বলেন, ‘‌বিপজ্জনক সৈকতগুলোতে স্নান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু ওই নিষিদ্ধঘাটগুলোকেই পর্যটকদের একাংশ স্নানের জন্য বেছে নিচ্ছেন। এছাড়া বহু পর্যটক নিষেধাজ্ঞা না মেনেই কোমর জলের বাইরে গিয়ে স্নান করছেন। সতর্ক করেও সামলে রাখা যাচ্ছে না বেপরোয়া এক শ্রেণির পর্যটককে।’‌
এদিন গ্রেপ্তার হওয়া ১০ পর্যটককেই গভীর সমুদ্র থেকে পুলিশের স্পিডবোট গিয়ে প্রথমে উদ্ধার করে। পরে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। ১০ জনই কলকাতার বাসিন্দা বলে জানিয়েছে পুলিশ। প্রত্যেকেই মত্ত অবস্থায় ছিল বলে জানা গেছে।

জনপ্রিয়

Back To Top