State Vs Governor: ‘বাংলায় আইনের শাসন নেই’, বিধানসভায় দাঁড়িয়ে বললেন ধনখড়! স্পিকার-রাজ্যপাল তরজা

আজকাল ওয়েবডেস্ক: সাধারণতন্ত্র দিবসের আগে মঙ্গলবার বিধানসভায় বি আর আম্বেদকরকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

সেখানেই উপস্থিত ছিলেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়, ছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। আর সেখানে দাঁড়িয়েই রাজ্য সরকারকে কার্যত কড়া ভাষায় বিঁধলেন জগদীপ ধনখড়। তিনি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা ভয়ঙ্কর। বাংলায় ভোটারদের স্বাধীনতা নেই। গণতন্ত্রে ভোটার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বাংলায় বিপদের মুখে গণতন্ত্র। ভোট-পরবর্তী হিংসার তারই প্রমাণ। এখানে আইনের শাসন নয়, শাসকের আইন চলছে। রাজ্য সরকারি আধিকারিকরা সাংবিধানিক মর্যাদা ভুলে গিয়েছে। রাজভবন কী করতে পারে তা জানা নেই তাঁদের। সরকারি অফিসারদের বিরোধীদের সঙ্গে শাসকদল খারাপ ব্যবহার করছে।’

 

এরপরই তিনি বলেন, ‘রাজভবনে কোনও ফাইল আটকে নেই। ফাইল আটকে রাখার যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা মিথ্যা। বিলে সই করা হয়নি বলেও মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।’ রাজ্য সরকারকে সরাসরি আক্রমণ করে রাজ্যপাল বলেন, মা ক্যান্টিনে কত টাকা খরচ করা হয়েছে তার উত্তর পাওয়া যায়নি। শিক্ষার উন্নয়নের জন্য ভিসিদের ডাকা হয়েছিল কিন্তু তাঁরা না এসে ইউনিয়ন করছেন? আমি যা প্রশ্ন করি না কেন রাজ্য তার উত্তর দেয় না।’ এরপরেই সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করে ধনখড় বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী আপনি সংবিধান বোঝেনই না। সংবিধান মেনে চলা আপনার সাংবিধানিক দায়িত্ব। রাজ্যপালকে কীভাবে উপেক্ষা করেন মুখ্যমন্ত্রী?’

আরও পড়ুন: ‘যথাসময়ে উত্তর দেবেন’, রীতেশ-জয়প্রকাশের বরখাস্ত প্রসঙ্গে বললেন দিলীপ ঘোষ

রাজ্যপালের এই মন্তব্যের পাল্টা দিয়েছেন বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়‌। তিনি বলেন, ‘উনি সৌজন্য ভাঙলেন। আমরা যা চিঠিতে লিখেছি প্রত্যেকটা বর্ণ সত্য। হাওড়া মিউনিসিপাল কর্পোরেশন বিল পাশ করা হয়নি। ভোট-পরবর্তী হিংসা মামলা আদালতে বিচারাধীন তিনি কেন এই বিষয়ে মুখ খুললেন তা বলতে পারব না।’

প্রসঙ্গত, রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাত এখন নিত্য-নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার বিধানসভায় দাঁড়িয়ে রাজ্যপাল যা বললেন তা এক অন্য মাত্রা নিল।

আকর্ষণীয় খবর