আজকালের প্রতিবেদন- ভবানীপুরে হর্ন মারার প্রতিবাদ করায় চড়ে মৃত্যুর ঘটনায় আত্মসমর্পণ করলেন অভিযুক্ত আইনজীবী তড়িৎ শিকদার। গ্রেপ্তারের পর আদালতে পেশ করা হলে তঁাকে শর্তসাপেক্ষে অন্তর্বর্তী জামিন দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি বৃহস্পতিবারের। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৪(২) ধারায় অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা দায়ের হয়।
অভিযোগ, টানা হর্ন বাজানোর প্রতিবাদ করায় ভবানীপুর বকুলবাগান রোডের এক বেসরকারি নিরাপত্তা সংস্থার অন্যতম কর্ণধার ৬৫ বছরের রমেশ বহেলকে চড় মারার পাশাপাশি ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয়েছিল। তঁার গাড়িচালক বিজয় সাহনি ভবানীপুর থানায় অভিযোগ করেন। জানান, সেই ধাক্কায় রাস্তায় পড়ে যান রমেশ। তঁার মাথার পেছন দিকে আঘাত লাগে। ঘটনাস্থলেই সংজ্ঞা হারান। এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসকেরা তঁাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ একটি সিসিটিভি–‌র সূত্রে জানতে পারে, গাড়িটি ভবানীপুর এলাকারই এক আইনজীবীর। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তকে পাওয়া যাচ্ছিল না। সোমবার ওই আইনজীবী তড়িৎ শিকদার ভবানীপুর থানায় আত্মসমর্পণ করেন। গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত আলিপুর আদালতের আইনজীবী।
এদিন আদালতে তড়িৎ শিকদারের হয়ে জামিনের আবেদন করেন বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়–সহ বেশ কয়েকজন আইনজীবী। তঁারা আবেদনে বলেন, যে–‌ধারায় মামলা হয়েছে তা প্রযোজ্য নয়। তাই জামিন মঞ্জুর হোক। সরকারি আইনজীবী সৌরেন ঘোষাল বলেন, অভিযুক্ত প্রভাব খাটাতে পারে। আদালত সব কিছু শোনার পর ২০ হাজার টাকার বন্ডে অভিযুক্তকে অন্তর্বর্তী জামিন দিয়েছে।‌‌‌

আইনজীবী তড়িৎ সিকদার। আলিপুর আদালতের পথে ছবি:‌ বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top