আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনা আবহে স্টাফ স্পেশ্যাল ট্রেনে যাতায়াত করতে পারবেন শুধুমাত্র রেলকর্মী ও স্বাস্থ্যকর্মীরাই, সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিল রেল। অন্য কেউ আর চড়তে পারবে না এই ট্রেনগুলিতে। নজর এড়িয়ে কেউ যদি এই ট্রেনগুলিতে চড়তে চান সেক্ষেত্রে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করবে রেল। যে হারে কোভিড সংক্রমণের হার বাড়ছে তাতে চিন্তা বাড়ছে রেল কর্তৃপক্ষের। প্রায় প্রতিদিনই রেলের কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন করোনায়। আর তার জেরেই এই সিদ্ধান্তের পথে হাঁটতে বাধ্য হল রেল। এ প্রসঙ্গে হাওড়ার ডিআরএম সুমিত নারুলা বলেন, ‘স্বাস্থ্যকর্মী এবং রেলকর্মীরাই শুধু যাতায়াত করবে স্টাফ স্পেশ্যাল ট্রেনে। স্বাস্থ্যকর্মীদের উপর নজর রাখতে ট্রেনগুলিতে কামরা আলাদা করে দেওয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছে সঠিক পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে। টিকিট পরীক্ষক স্বাস্থ্যকর্মীদের পরিচয়পত্র দেখেই ট্রেনে উঠতে দেবেন। কোনওভাবেই কোভিড সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে না যায় তাই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি রেলকর্মীদের মধ্যে ক্রমশ বাড়ছে কোভিড সংক্রমণের হার। প্রায় ৩০ জন রেলকর্মীর মৃত্যু হয়েছে কোভিড সংক্রমণের জেরে। এ প্রসঙ্গে পূর্ব রেলের মেনস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অমিত ঘোষ বলেন, ‘রেলের বি আর সিং হাসপাতালে রয়েছে পর্যাপ্ত চিকিৎসকের অভাব। পালমোনোলজিস্ট রয়েছেন মাত্র ১ জন। ফলে ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা পরিষেবা। এর পাশাপাশি দেশের অন্যান্য রাজ্যেও রেলকর্মীদের মধ্যে করোনা সংক্রমণের হার বাড়ছে। এ প্রসঙ্গে, রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান সুনীত শর্মা বলেন, ‘মারণ ভাইরাস করোনা কেড়ে নিয়েছে ১,৯৫২ জন রেলকর্মীর প্রাণ। করোনা সংক্রমণের জেরে ভারতীয় রেলের ক্ষতি হয়েছে। আর রেলের মাধ্যমে যাত্রীরা যাওয়া আসা করছেন। পণ্যও রেলের মাধ্যমে একস্থান থেকে আরেক জায়গায় যাচ্ছে। আর জনসমাগমের জেরে ছড়িয়ে পড়ছে করোনা। আর তা থেকেই গড়ে প্রতিদিন আমাদের রেলকর্মীদের মধ্যে ১ হাজারের কাছাকাছি করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে আমরা রেলের নিজস্ব হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরি করেছি। রেলের হাসপাতালেই আমাদের কর্মীদের চিকিৎসা চলছে।

জনপ্রিয়

Back To Top