দীপেন গুপ্ত
পুরুলিয়ার প্রত্যন্ত এলাকার যুবকেরা বহু মানুষকে দেখিয়ে দিলেন সরকারের নির্দেশ কেমন করে মানতে হয়। হোম কোয়ারেন্টিন কী, তা দেখিয়ে দিল এক অজপাড়াগঁায়ের ৭ যুবক। ৭ জন চেন্নাই–ফেরত যুবককে গাছের ওপরে মাচা করে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করলেন গ্রামবাসীরা। 
এমনই কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করলেন পুরুলিয়ার বলরামপুর ব্লকের গেড়ুয়া অঞ্চলের ভাঙিডি গ্রামের বাসিন্দারা। জানা গেছে, এই গ্রামের ৭ জন যুবক কয়েক মাস আগে চেন্নাই গিয়েছিলেন কাজের সূত্রে। তারপর করোনা ভাইরাসের প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় তঁারা কাজ ছেড়ে ট্রেন ধরে বাড়ি ফিরে আসেন। রবিবার তঁারা খড়্গপুর স্টেশনে নেমে গাড়ি করে সোমবার গ্রামে আসেন। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, তঁাদের আসার খবর পেয়েই তঁাদের নিয়মমতো বাড়িতে না ঢুকিয়ে আগেভাগেই তঁাদের গাছের ওপর মাচা করে থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। গ্রামে আলাদা বাড়ি নেই তঁাদের। তাই ওঁদের রাখার জন্য গাছের ওপর মাচা বেঁধে খাটিয়া চাপিয়ে একটি গাছের বিভিন্ন ডালে ৭ জনের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তঁাদের জন্য আলাদা খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রান্নার সমস্ত সরঞ্জাম দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া তঁাদের খাদ্যদ্রব্য বাড়ির লোকজন গাছের তলায় রেখে দিয়ে আসছে। তঁারা দিনের বেলায় নীচে নেমে রান্না করে। আবার গাছের ওপর শুয়ে–বসে দিন কাটাচ্ছেন। 
গ্রামবাসীরা আরও জানিয়েছেন, এটা পুরনো প্রথা। হাতির নজর রাখার জন্য এরকম মাচা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এবার একইভাবে হোম কোয়ারেন্টিন করা হল। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ওই ৭ যুবকের কোনও করোনা সংক্রমণের রিপোর্ট নেই। তবু ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

জনপ্রিয়

Back To Top