আজকালের প্রতিবেদন: কন্টেনমেন্ট জোনে এখন পুরো এলাকা নয়, যে বাড়িতে করোনা–আক্রান্ত রয়েছেন, সেই বাড়ি এবং তার চারপাশের বাড়িগুলিকে আনা হয়েছে। সেই কারণে অধিকাংশ জায়গাতেই যানবাহন চলাচল, দোকান–বাজার খোলার ক্ষেত্রে কোনও অসুবিধা হবে না। কারণ নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, শুধুমাত্র কন্টেনমেন্ট জোনেই বিধিনিষেধ রয়েছে। আগে যেখানে করোনা–আক্রান্ত পাওয়া যেত, সেই এলাকাটি পুরোটাই কন্টেনমেন্ট জোন করা হত। ওই অঞ্চল দিয়ে যানবাহন চলাচল এবং দোকান–বাজার বন্ধ রাখা হত। পুলিশ বা প্রশাসন ওইসব জায়গায় জিনিসপত্র সরবরাহ করত। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে ততই কন্টেনমেন্ট জোনের নতুন সংজ্ঞা হচ্ছে। নিয়ম, বিধিও কিছু শিথিল করা হয়েছে।
করোনা–আক্রান্ত কাউকে পাওয়া গেলে শুধুমাত্র সেই বাড়ি এবং চারপাশের বাড়িগুলি কন্টেনমেন্ট জোনের আওতায় পড়বে। বহুতল আবাসন হলে শুধুমাত্র সেটিই কন্টেনমেন্ট জোন করে ঘিরে দেওয়া হবে। সামনের রাস্তা তার মধ্যে পড়বে না। একইরকমভাবে বড় রাস্তার ধারে কোনও বহুতল বা বাড়ি হলে, তার সামনের অংশ ঘিরে দেওয়া হবে। রাস্তা দিয়ে যান চলাচলে কোনও অসুবিধা হবে না। বস্তির ক্ষেত্রে যেহেতু অনেকেই একই বাথরুম এবং একই কলের জল ব্যবহার করেন, তাই সংশ্লিষ্ট বস্তি–সংলগ্ন রাস্তার দু’দিক বন্ধ করে আটকে দেওয়া হবে।
কলকাতা পুরসভা এলাকায় ২৮৬, হাওড়ায় ১০৩টি কন্টেনমেন্ট জোন রয়েছে। কলকাতা পুরসভা এলাকায় ১ থেকে ৫৯ এবং ৬২ নম্বর ওয়ার্ড মিলিয়ে উত্তর ও মধ্য কলকাতা। এখানকার কিছু বাড়ি এবং রাজা মণীন্দ্র রোড, রবীন্দ্র সরণি, শোভাবাজার স্ট্রিট, বেলগাছিয়া রোড, কাশীপুর রোড, নলীন সরকার স্ট্রিট, বিধান সরণি, ক্যানাল ওয়েস্ট রোড, রাজা ধীরেন্দ্র স্ট্রিট, বেনিয়াটোলা স্ট্রিট, নারকেলডাঙা মেন রোড, বেলেঘাটা মেন রোড, বিডন স্ট্রিট, কলুটোলা স্ট্রিট, বি বি গাঙ্গুলি স্ট্রিট, রাজা রামমোহন সরণি সংলগ্ন কয়েকটি বাড়ি কন্টেনমেন্ট জোনে রয়েছে। তবে সংলগ্ন রাস্তাগুলি এর বাইরে। ফলে রাস্তাগুলি দিয়ে যান চলাচল, দোকানপাট খোলায় কোনও অসুবিধা নেই।
৬০, ৬১ এবং ৬৩ থেকে ১৪৪ নম্বর ওয়ার্ড দক্ষিণ কলকাতার অন্তর্গত। এই এলাকার কয়েকটি বাড়ি এবং এ জে সি বোস রোড, হাজরা রোড, দেওদার স্ট্রিট, কেয়াতলা লেন, হিন্দুস্থান রোড, বালিগঞ্জ গার্ডেন, জাজেস কোর্ট রোড, ময়ূরভঞ্জ রোড, একবালপুর রোড, আলিপুর রোড, টালিগঞ্জ রোড, টালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের সংযোগস্থল এলাকার কয়েকটি বাড়ি কন্টেনমেন্ট জোনে থাকায় সেগুলি ঘেরা রয়েছে। সংলগ্ন রাস্তাগুলি এর বাইরে। ফলে রাস্তাগুলি দিয়ে নিয়মিত যান চলাচল করছে। অন্য এলাকায় দোকান–বাজার খোলায় অসুবিধা নেই।
হাওড়া পুরসভার ৩৭টি ওয়ার্ডের কয়েকটি বাড়ি কন্টেনমেন্ট জোনে রয়েছে। এ ছাড়া চামড়াইল, বালি জগাছা, ডোমজুড়, সাঁকরাইল, শ্যামপুর, উলুবেড়িয়া, উদয়নারায়ণপুরের কয়েকটি বাড়িও আছে।‌‌ বিধাননগর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বেশ কয়েকটি অঞ্চলের কিছু বাড়ি কন্টেনমেন্ট জোনে রয়েছে। রাস্তাগুলি কন্টেনমেন্ট জোনের বাইরে থাকায় যান চলাচল করলেও, যে সব গলি এর মধ্যে পড়েছে সেগুলি দিয়ে রিকশা, অটো চলাচল এমনকী সাধারণের যাতায়াত বন্ধ রয়েছে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top