আজকালের প্রতিবেদন: অত্যন্ত মর্মান্তিক ঘটনা। রাতে বাসেই ঘুমিয়েছিলেন চালক। সকালে বালতির মধ্যে মুখ ঢুকিয়ে পড়েছিল তাঁর নিথর দেহ। আর বালতি ভর্তি ছিল রক্তবমিতে। সকালে বেলঘরিয়া বাসুদেবপুরে কে ৮ রুটের বাস চালাতেন মন্টু দাস (৪৭)। সোমবার রাতে বাসের মধ্যেই রক্তবমি করতে করতে মারা যান তিনি। মঙ্গলবার সকালে পুলিস তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। তাঁর পাশ থেকে উদ্ধার হয়েছে রক্তবমি–সহ বালতি।
পুলিস জানিয়েছে, মৃত ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। তা সত্ত্বেও তিনি বাস চালাতেন। রাতে বেলঘরিয়ার বাসুদেবপুরে বাস গ্যারেজ করার পর মাঝেমধ্যেই বাসের মধ্যেই শুয়ে পড়তেন। সোমবার রাতে বাস গ্যারেজ করার পর বাসেই মশারি খাটিয়ে শুয়ে পড়েন তিনি। রাতে সম্ভবত কাশতে কাশতে তাঁর মুখ দিয়ে রক্ত বেরিয়ে আসে। রক্তবমি করতে করতে সম্ভবত মৃত্যু হয়েছে তাঁর।
মঙ্গলবার সকালে বাসের মধ্যে মন্টুকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায়। প্রচুর মানুষের ভিড় জমে। তাঁরাই পুলিসে খবর দেন। জানা গেছে, তাঁর বাড়ি রানাঘাটে। বেলঘরিয়ায় একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতেন, রাতে বাসের মধ্যে শুতেন। তিনি ওই বেসরকারি বাসের অস্থায়ী চালক ছিলেন। প্রাথমিক তদন্তে তাঁর মৃত্যু রক্তবমিজনিত কারণে মনে হলেও এর পেছনে অন্য কোনও কারণ আছে কিনা তাও দেখছে পুলিস। এ সব পরিষ্কার হবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর।  

জনপ্রিয়

Back To Top