আজকালের প্রতিবেদন: পাচার আটকাতে গরু ধরে বিপাকে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (‌বিএসএফ)‌। রাখার জায়গা নেই। শিবিরের পাশেই সাময়িক খোঁয়াড় তৈরি করে রাখা হয়েছে এদের। গরু, মোষের সঙ্গে পাশাপাশি থাকতে হচ্ছে বিএসএফ জওয়ানদের। বাড়ছে রোগ সংক্রমণের সম্ভাবনা। সমাধানের জন্য বেশ কিছু গরু, মহিষ ইতিমধ্যেই তুলে দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতে। কিন্তু সেটা যথেষ্ট নয় বলেই জানাচ্ছেন বিএসএফ আধিকারিকরা। স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন তঁারা। একইসঙ্গে সুন্দরবন এলাকায় জলপথে নজরদারি বাড়াতে ৬‌টি নতুন ভাসমান শিবির বা ফ্লোটিং বর্ডার আউটপোস্ট (‌এফবিওপি)‌ চালু করা ছাড়াও দক্ষিণবঙ্গের অন্য সীমান্ত এলাকায় বসানো হচ্ছে সিসি ক্যামেরা। এই মুহূর্তে সুন্দরবনে এফবিওপি–‌‌র সংখ্যা ৩টি।বুধবার বিএসএফের আইজি (‌দক্ষিণবঙ্গ)‌‌ ওয়াই বি খুরানিয়া জানিয়েছেন, ‘‌আগে গরু বা মোষ বাজেয়াপ্ত করার পর তা শুল্ক দপ্তরের হাতে তুলে দেওয়া হত। যেগুলি পরে নিলামে বিক্রি করে দেওয়া হত। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর ২০১৮–‌তে নভেম্বর মাস থেকে এখন আর শুল্ক দপ্তরের হাতে সেগুলি তুলে দেওয়া হয় না। এখন সেগুলি পুলিসের হাতে তুলে দেওয়া হয়। আপাতত বিএসএফের বিভিন্ন শিবিরে বাজেয়াপ্ত ২৫০০ গরু এবং মোষ আছে। এগুলি এখনও কারোর হাতে তুলে দেওয়া যায়নি। ফলে এদের রক্ষণাবেক্ষণ আমাদেরই করতে হচ্ছে।’‌ বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন। 
রাজ্যের প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন দপ্তরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত রাষ্ট্রমন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে তঁাদেরকে কিছুই জানানো হয়নি। তিনি এ ব্যাপারে খোঁজ নেবেন।
বিএসএফ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ৩১ জুলাই পর্যন্ত তারা ১৯ হাজার গরু এবং মোষ বাজেয়াপ্ত করেছে। যার মধ্যে একটি বিরাট সংখ্যা বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতে দেখাশোনার জন্য তুলে দেওয়া হয়েছে। এক বিএসএফ আধিকারিক জানিয়েছেন মাঝে মাঝে পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছয় যে পাচারের জন্য গরু বা মোষ  নিয়ে আসছে দেখা গেলে দূর থেকে হঁাকডাক করা হয়। যাতে সীমান্তের কাছে না আসে।  পাচার আটকাতে রাজ্য পুলিসের ভূমিকার প্রশংসা করেছেন আইজি। তিনি বলেন, স্থানীয় পুলিসের সহযোগিতায় বহু ক্ষেত্রে পাচার আটকানো হচ্ছে। একইসঙ্গে যে এলাকায় সীমান্তে এখনও বেড়া দেওয়া যায়নি সেই সীমান্তগুলিতে বেড়ার জন্য জমির প্রয়োজনে রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ছবিটি প্রতীকী

জনপ্রিয়

Back To Top