নিরুপম সাহা, ‌বনগাঁ: সন্ধে নামতেই রাতের আলোয় সীমান্ত শহর বনগাঁ বদলে গিয়ে পরিণত হয় বন্দর শহরে।  সন্ধের পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বনগাঁর যশোর রোডের দুধারের বাজার–সহ আশপাশের অলিগতিতে ঝাঁক বেঁধে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায় অপরিচিত মহিলাদের।  অভিযোগ, তাঁদের হাত ধরেই বৈধ পথে ভারত থেকে বাংলাদেশে কার্যত পাচার হয়ে যাচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার ভারতীয় পণ্য।‌
ভারতের সীমান্ত লাগোয়া বাংলাদেশের বেনাপোল, যশোর এলাকার বহু মহিলা মাল্টি  ভিসা নিয়ে নিয়মিত আসছেন বনগাঁ শহরে। তাঁরা শহরের রাখালদাস সেতু সংলগ্ন এলাকার হোটেলগুলিতে এক রাতের জন্য থাকেন। এই মহিলারা দিনের বেলায় বনগাঁ শহরে পৌঁছন। সন্ধে থেকে রাত পর্যন্ত শহরের নানা দোকান ঘুরে বিভিন্ন জিনিসপত্র কেনাকাটা করেন। এসবের মধ্যে রয়েছে ফল, জুতো, বাসন থেকে পোষাক। কেনাকাটা শেষ করে রাতটুকু কাটিয়ে তাঁরা ফিরে যান বাংলাদেশে। সেখানে ভারতীয় এইসব পণ্য দ্বিগুন দামে বিক্রি করে লাভের টাকা ঘরে তোলেন।  মাল্টি ভিসায় এক একজন মহিলা মাসে ২ থেকে ৩ বার এইভাবে ভারতে এসে ভারতীয় পণ্য কিনে নিয়ে গিয়ে নিজেদের দেশে বিক্রি করছেন।  বাড়িতে বিয়ে–সহ নানা অনুষ্ঠানের অজুহাত দেখিয়ে অভিবাসন ও শুল্ক দপ্তরের অফিসারদের সামনে দিয়েই এইসব ভারতীয় পণ্য নিয়ে তারা চলে যাচ্ছেন বাংলাদেশে। বর্তমানে এই কাজে যুক্ত কয়েকশ বাংলাদেশি মহিলা। এঁদের দাপটে স্থানীয় হোটেলগুলিতে ঘর ভাড়াও বেড়ে গেছে কয়েক গুণ। সরকারি আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে পাসপোর্ট, ভিসা নিয়ে এদেশে এসে প্রকাশ্য পথে ভারত থেকে এইভাবে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার পণ্য কার্যত পাচার হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশে। 

জনপ্রিয়

Back To Top