আবির রায়, ‌দুর্গাপুর: শুক্রবার সকাল ৭টা ২২মিনিট। হঠাৎ ফোন আসে দুর্গাপুরের একটি হিন্দি দৈনিকের সাংবাদিকের কাছে। বলা হয়, সিটি সেন্টারের দুটি শপিং মলে বোমা রাখা আছে। কিছুক্ষণ পরই বিস্ফোরণ হবে। তখনই ফোনের কথা পুলিসকে জানান ওই সাংবাদিক। এরপর আসানসোল–দুর্গাপুর পুলিস কমিশনারেটের ডিসিপি (পূর্ব) অভিষেক মোদির নেতৃত্বে বিশাল পুলিসবাহিনী যায় ঘটনাস্থানে। মল খালি করে দেওয়া হয়। শুরু হয় চিরুনি তল্লাশি। ঘটনাস্থানে পৌঁছয় বম স্কোয়ার্ডও। পুলিস সূত্রে জানা গেছে, এদিন দুর্গাপুরের স্থানীয় একটি হিন্দি দৈনিকের সাংবাদিকের কাছে উড়ো ফোন আসে। ফোনে বলা হয়, দুটি শপিং মলের কমপ্লেক্সের নিচ তলায় বোমা রাখা আছে। এই খবর পেয়েই পুলিস কমিশনারেটের আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। দুটি শপিংমল খালি করে দেন। তারপর শুরু হয় প্রতিটি বিপণীতে চিরুনি তল্লাশি। মলের গুদামে পুলিস কুকুর এনে তল্লাশি করা হয়। বিভিন্ন মলের ব্যাগ আর বাক্স খঁুজে দেখেন বোম্বস্কোয়ার্ডের অফিসারেরা। দুটি মলেই এলাকায় বাইরে লোকদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। পুলিস কমিশনারেটের ডিসিপি অভিষেক মোদি বলেন, ‘‌চারিদিকের মানুষের মধ্যে বোমাতঙ্ক দেখা দিয়েছে। যে নম্বর থেকে ফোন এসেছিল তার খোঁজখবর চলছে। আপাতত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে কোনও শপিংমল থেকেই বোমার খোঁজ মেলেনি। ধৃত ব্যক্তিকে জেরা চলছে।’‌ এদিকে বোমাতঙ্কের খবর প্রচারিত হতেই দুটি শপিং কমপ্লেক্সের কাছের মানু্ষজন এলাকা ছেড়ে পালান। এদিন দুটি মলেই ক্রেতার ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো কম। 

বোমার খোঁজে পুলিস কুকুর দিয়ে চলছে তল্লাশি। ছবি:‌ প্রতিবেদক
 

জনপ্রিয়

Back To Top