উদয় বসু: ভাটপাড়া পুরসভার ১২ জন কাউন্সিলর বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর থেকে ভাটপাড়ার হাওয়াটাই যেন বদলে গেছে। কিছুদিন আগে পর্যন্ত থাকা বিজেপি–র দাপট এখন কোথায় যেন মিলিয়ে গেছে। এদিকে, গেরুয়া–‌সন্ত্রাসের জেরে ঘরের কোণে লুকিয়ে থাকা তৃণমূলের কর্মী–সমর্থকদের নতুন উৎসাহের সঙ্গে দলীয় কাজে নেমে পড়তে দেখা গেল বৃহস্পতিবার।
এদিন ভাটপাড়া পুরসভায় গিয়ে দেখা গেল, এই কিছুদিন আগেও বিজেপি কর্মী, কাউন্সিলরদের উপস্থিতিতে পুরসভা গমগম করত। আজ তা যেন নিস্তব্ধ হয়ে পড়েছে। বিজেপি কাউন্সিলরদের কাউকেই এদিন দেখা গেল না। সূত্রের খবর, শুক্রবার তৃণমূলের ১৭ জন কাউন্সিলর উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসকের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন আরও ৬ কাউন্সিলর।
ভাটপাড়া গোলঘর হাসপাতালের কাছে নিজের বাড়িতে বসে ২৩ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সত্যেন রায় বলছিলেন, ‘‌বিজেপি–র খেলা শেষ। যেভাবে ওরা দিনের পর দিন ভাটপাড়ায় অত্যাচার চালিয়েছে, মানুষ তা ভুলে যায়নি। তৃণমূল করার অপরাধে বিজেপি–‌আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমার বাড়ি ভাঙচুর করে। মেরে আমার হাত ভেঙে দেয়। তবুও আমি দল ছাড়িনি। আমাদের মাথার ওপর আছেন ফিরহাদ হাকিম, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, পার্থ ভৌমিক, নির্মল ঘোষ, সর্বোপরি আমাদের সকলের দিদি মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।’‌
এদিকে, ইতিমধ্যে জগদ্দল সুন্দিয়া মোড়ে ‘‌জাগো বাংলা’‌র স্টল খুলেছে। ‘‌দিদিকে বলো’‌–র প্রচার শুরু করেছেন কর্মী–সমর্থকরা। শুধু জগদ্দল নয়, ভাটপাড়ার বিভিন্ন জায়গা থেকে ‘‌দিদিকে বলো’‌–র প্রচার শুরু হবে বলে জানিয়েছেন ভাটপাড়ার তৃণমূল নেতা সোমনাথ শ্যাম।

ভাটপাড়ায় ২৩ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সত্যেন রায়। ছবি:‌ ভবতোষ চক্রবর্তী‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top