আজকালের প্রতিবেদন‌, দিল্লি: ১০০ দিনের কাজ থেকে শুরু করে কন্যাশ্রীর মতো একাধিক প্রকল্পে বাংলা এখন সবার সেরা। বাংলার জনকল্যাণমূলক প্রকল্প দেখে শিখুক কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। এমনটাই বলছে তৃণমূল। জাতীয় স্তরে যখন ক্রমশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যাচ্ছে তৃণমূলকে, সেই সময় পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল হিসেবে নিজেদের সাফল্যের দিকগুলিও তুলে ধরতে চাইছে তৃণমূল। পশ্চিমবঙ্গের বাইরের রাজ্যগুলিও মমতাকে অনুসরণ করছে বলে দাবি করছে দল। এরই মধ্যে মঙ্গলবার রাজ্যসভার সাংসদ মানস ভুঁইয়ার লিখিত প্রশ্নের জাবাবে কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক জানিয়েছে, চলতি অর্থবর্ষে ১০০ দিনের কাজ প্রকল্পে মোট অর্থ ব্যয় এবং কাজের দিন তৈরি দুটি মাপদণ্ডেই অন্যান্য সব রাজ্যকে পেছনে ফেলে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পাওয়া হিসেব অনুযায়ী রাজ্যে মোট ২৮২১.‌৭১ লক্ষ ‌কর্মদিবস তৈরি হয়েছে। 
তৃণমূল সাংসদ মানস ভুঁইয়ার কথায়, ‘বাংলার উন্নয়ন নিয়ে পরিকল্পিতভাবে গোটা দেশ জুড়ে একটা অপপ্রচার চালাচ্ছে বিরোধীরা। ফলে, কেউ কেউ তাতে বিশ্বাস করছেন। কিন্তু, আসল চিত্রটা ঠিক কী তা পরিষ্কার করে দিয়েছে বিজেপি ‌শাসিত কেন্দ্রীয় সরকারই। রীতিমতো তথ্য দিতে সরকার জানিয়েছে, ১০০ দিনের কাজ প্রকল্পে মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বাধীন বাংলা সবার ওপরে রয়েছে।’‌ দলের জাতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও’‌ব্রায়েন এর সঙ্গে যুক্ত করেছেন কন্যাশ্রী, পণ্য ও পরিষেবা করের ক্ষতিপূরণ এবং শিশুমৃত্যুর হার ইত্যাদি বিষয়গুলি। দলের দাবি, নরেন্দ্র মোদি সরকার ‘‌বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও’‌ প্রকল্পের কথা ঢাক–‌ঢোল পিটিয়ে প্রচার করলেও বাস্তবে গোটা দেশের জন্য এই প্রকল্পে বরাদ্দ করা হয়েছে মাত্র ৫০০ কোটি টাকা। অথচ, পশ্চিমবঙ্গের মতো ঋণগ্রস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী শিশুকন্যাদের কল্যাণে ‘‌কন্যাশ্রী’ প্রকল্পে বরাদ্দ করেছেন প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা। এই একটি উদাহরণেই মোদি সরকারকে কুপোকাত করা যেতে পারে। এই প্রকল্পে নথিভুক্ত হয়েছে বাংলার ৪৩ লক্ষ শিশুকন্যা। এছাড়াও গত ৬ ‌বছরে শিশুমৃত্যুর হার অনেক কমেছে। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top