আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌বেলুড় গ্যাস লিককাণ্ডে হাওড়া পুলিস স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মামলা শুরু করল। কারখানার তিন মালিকের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার বেলুড়ের বজরংবলী মার্কেটে একাধিক বাতিল গ্যাস সিলিন্ডার কাটার সময় ঝাঁঝালো গ্যাস লিক হয়ে একাধিক জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। ওই লোহা মার্কেটের একটি ছাট লোহার কারখানায় বহু বাতিল গ্যাস সিলিন্ডার কাটা হচ্ছিল। সে সময় একটি সিলিন্ডার থেকে ঝাঁঝালো গ্যাস লিক হতে শুরু করে। প্রথমে কারখানার বেশ কয়েকজন কর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েন। গ্যাস এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় শিশু-মহিলা সহ স্থানীয়দের অনেকের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়, শুরু হয় মাথার যন্ত্রণা, বমি। কেউ কেউ অজ্ঞানও হয়ে পড়েন বলে দাবি। অসুস্থদের নিয়ে যাওয়া হয় বেলুড় শ্রমজীবী হাসপাতাল এবং ঘুষুড়ির টিএল জয়সওয়াল হাসপাতালে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ ও দমকল। বাতিল গ্যাস সিলিন্ডারটিকে বেলুড়ের জগন্নাথ ঘাটে নিয়ে গিয়ে তারা গঙ্গায় ফেলে। ঝাঁঝালো গ্যাসে কিছুক্ষণের মধ্যেই গঙ্গার জল হয়ে যায় সবুজ। এই ঘটনায় পুলিস তদন্তে নেমে জানতে পারে, কারখানাটি দমকলের সুরক্ষা বিধি না মেনেই এতদিন ধরে চলছিল। পুলিস কারখানার তিন মালিক সন্দীপ আগরওয়াল, শশাঙ্ক আগরওয়াল এবং লক্ষ্মীচন্দ্র আগরওয়ালের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৮, ৩৩৫ এবং ৩৩৮ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। এছাড়াও দমকলের অগ্নিনির্বাপন বিধি না মানার জন্য পশ্চিমবঙ্গ দমকল আইনের ধারাতেও গাফিলতির মামলা করা হয়েছে। পুলিস তদন্তে জানার চেষ্টা করছে, ঠিক কী ধরনের গ্যাস ওই কারখানায় মজুত ছিল। 

জনপ্রিয়

Back To Top