নিরুপম সাহা,গাইঘাটা: বাংলাদেশি দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া বোমার আঘাতে মারাত্মকভাবে জখম হলেন কর্তব্যরত সীমান্তরক্ষী বাহিনীর এক জওয়ান। বৃহস্পতিবার ভোররাতে এই ঘটনা ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার গাইঘাটা থানার আংরাইল সীমান্তে। জখম জওয়ানকে প্রথমে বনগঁা এবং পরে কলকাতার হাসপাতালে পাঠানো হয়। এই ঘটনায় সীমান্ত এলাকায় নতুন করে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।
পুলিশ এবং বিএসএফ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৩টে নাগাদ বিএসএফের ৬৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের জওয়ান আনিসুর রহমান যখন সীমান্ত পাহারার কাজে নিযুক্ত ছিলেন, তখন একদল বাংলাদেশি দুষ্কৃতী সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করে। এই সময় তিনি দুষ্কৃতীদের মোকাবিলা করতে গেলে তঁাকে লক্ষ্য করে বোমা ছোঁড়া হয়। একটি বোমা সরাসরি তঁার গায়ে এসে লাগে। ডান হাত এবং ডান পা মারাত্মকভাবে জখম হয়। বোমার শব্দে ছুটে আসেন তঁার সহকর্মীরা। তঁারাই জওয়ানকে রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে বনগঁা মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু আঘাত গুরুতর থাকায় তঁাকে কলকাতার হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।
উল্লেখ্য, গাইঘাটার বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া আংরাইল গ্রামের বেশ কিছু এলাকা কঁাটাতারহীন অবস্থায় রয়েছে। আর সেই সুযোগ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশি দুষ্কৃতীরা ভারতীয় সীমান্তে ঢুকে নানাভাবে অত্যাচার করছে। বিএসএফের নজর এড়িয়ে গরু পাচারের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। গরু পাচারকারীদের কারণে গ্রামের অনেক জমির ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। প্রতিবাদ করলে গ্রামবাসীদের ওপর অত্যাচার চালায় তারা। এভাবেই প্রতিবাদ করতে গিয়ে বাংলাদেশি দুষ্কৃতীদের হাতে প্রাণ যায় এই গ্রামের বাসিন্দা, সিআরপিএফ এক জওয়ানের। শুধু গ্রামবাসীরাই নন, এই দুষ্কৃতীদের হাত থেকে রেহাই পান না সীমান্তে কর্তব্যরত বিএসএফ জওয়ানরাও। ইতিমধ্যেই এই সীমান্তে কর্তব্যরত অবস্থায় দুষ্কৃতীদের মোকাবিলা করতে গিয়ে বেশ কয়েকজন বিএসএফ জওয়ান জখম হয়েছেন। এই ঘটনারই নবতম সংযোজন এদিনের ঘটনা।

চিকিৎসাধীন বিএসএফ জওয়ান। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top