‌‌‌আজকালের প্রতিবেদন‌: যাঁরা অনেক কষ্টে নিজেদের যাবতীয় সঞ্চয়ের অর্থ ঢেলে আজ ব্যাঙ্কের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে গ্রামাঞ্চলে বা ছোট শহরে একটা ফ্ল্যাট কিনছেন কিংবা একটা বাড়ি করছেন, তাঁদের কিছুটা সুবিধে করে দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকার স্ট্যাম্প ডিউটির ওপর ছাড় দিয়েছে। রুগ্‌ণ চা–‌বাগানকে চাঙ্গা করতেও কর ছাড় দিয়েছে। কারণ ব্যাঙ্ক স্ট্যাম্প ডিউটির টাকা ঋণ হিসেবে দেয় না। বৃহস্পতিবার ফিন্যান্স বিল অনুমোদন করাতে গিয়ে এ কথা বলেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী ড.‌ অমিত মিত্র। তিনি জানিয়েছেন, আগে ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত সম্পত্তির ওপর ৬ শতাংশ কর দিতে হত। এখন সেটা ১ কোটি টাকা পর্যন্ত সম্পত্তির ওপর দিতে হবে। ফলে ৬০ হাজার টাকা রেহাই পাবে। তিনি সভাকে জানান, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি একটা কথা বলেন, মানুষকে যতদূর সম্ভব করের বোঝা থেকে রেহাই দিন আর স্বচ্ছতা আনুন। ড.‌ সুখবিলাস বর্মা বলেন, এই কর ছাড়ের ফলে মানুষের খুব একটা সুবিধা হবে না। চা–‌শিল্পও চাঙ্গা হবে না। এই শিল্পকে চাঙ্গা করতে গেলে জলপাইগুড়ি অকশন সেন্টার ভালভাবে চালু করতে হবে। নেপাল মাহাতো বলেন, কৃষি যন্ত্রপাতির থেকেও বেশি দরকার বিদ্যুতের ওপর ছাড়। অশোক ভট্টাচার্য বলেন, গোটা বাজেটে রাজ্যের নিজস্ব আয়ের থেকে কেন্দ্রীয় প্রকল্পের ওপর বেশি নির্ভরতা কেন। তৃণমূলের শীলভদ্র দত্ত বলেন, চরম আর্থিক সঙ্কটেও এই সরকার মানুষকে কিছুটা হলেও আর্থিক বোঝা থেকে রেহাই দিতে চায়। প্রসঙ্গত, ফিন্যান্স বিলে বিরোধিতার জায়গা নেই। ছাড়ের জন্য কিছু আইন সংশোধনের প্রয়োজন।‌

জনপ্রিয়

Back To Top