Murshidabad: পরীক্ষার পর স্কুলে বন্দি! ২৪ ঘণ্টা পর উদ্ধার, হাসপাতালে ভর্তি লালবাগের দশম শ্রেণির ছাত্রী

আজকাল ওয়েবডেস্ক: প্রায় ২৪ ঘণ্টার বেশি স্কুলে 'বন্দি' থাকার পর উদ্ধার হলেন মুর্শিদাবাদের লালবাগ এমএমসি গার্লস হাই স্কুলের দশম শ্রেণির এক ছাত্রী।

মুর্শিদাবাদ পুরসভা এলাকার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা অপর্ণা দাস গতকাল নিজের স্কুলে পরীক্ষা দিতে যান। তারপর থেকে আর তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। 

রবিবার সন্ধেয় কিছু রাজমিস্ত্রী যখন ওই স্কুলের পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন সেই সময় তাঁরা অপর্ণাকে স্কুলের তৃতীয় তলে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন। এরপরই দ্রুত খবর দেওয়া হয় অপর্ণার বাড়িতে। অসুস্থ অবস্থায় অপর্ণাকে বর্তমানে লালবাগ মহাকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

অপর্ণার বাবা প্রদ্যুৎ কুমার দাস বলেন, 'শনিবার স্কুলের পরীক্ষা থাকায় আমার মেয়ে সঠিক সময়ে স্কুলে চলে যায়। দুপুর দুটোর সময় তার স্কুল ছুটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তিনটে বেজে গেলেও আমার মেয়ে বাড়ি ফিরে না আসায় আমরা তার স্কুলে খোঁজ করতে যাই।' 

তিনি বলেন, 'সেই সময়ে স্কুলের সমস্ত ছাত্রীই বাড়ি ফিরে গিয়েছিল। স্কুলে কয়েকজন মাত্র শিক্ষিকা বসে কাজ করছিলেন। আমরা তাঁদেরকে গোটা বিষয়টি জানালে স্কুলের শিক্ষিকারা আমাদেরকে বলেন আমার মেয়ে হয়তো কোনও বান্ধবীর সঙ্গে তার বাড়িতে চলে গেছে। স্কুলের শিক্ষিকারা আমাকে সমস্ত বান্ধবীদের বাড়িতে অপর্ণার খোঁজ করার পরামর্শ দেন। এর পাশাপাশি সেইসময় স্কুলের একজন অশিক্ষক কর্মী 'গোটা' স্কুল খুঁজে এসে দাবি করেন আমার মেয়ে স্কুলের মধ্যে কোথাও আটকে নেই।' 

প্রদ্যুৎ জানান, 'এরপরই আমরা গোটা বিষয়টি লিখিত আকারে মুর্শিদাবাদ থানাতে জানিয়ে আমার মেয়ের নিখোঁজ ডায়রি করি। রবিবার সারাদিন আমরা বিভিন্ন জায়গায় আমার মেয়ের খোঁজ করেছি। কিন্তু কোথাও তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।' 

তিনি বলেন,' গতকাল স্কুলের যে অশিক্ষক কর্মী আমার মেয়েকে স্কুলে খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে দাবি করেছিলেন তিনিই রবিবার সন্ধে নাগাদ আমাকে ফোন করেন এবং বলেন আমার মেয়েকে স্কুলের ভেতর থেকে খুঁজে পাওয়া গেছে। এই খবর পেয়ে আমরা দ্রুত স্কুলে চলে আসি এবং জানতে পারি আমার মেয়ে স্কুলের তৃতীয় তলে ছিল। কীভাবে এবং কেন সে তৃতীয় তলে থেকে গেল তা এখনও আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়।' 

অপর্ণার বাবা বলেন, 'স্কুলের ওই অশিক্ষক কর্মী আমাদেরকে জানিয়েছেন গতকাল তৃতীয় তলে কোনও পরীক্ষা না থাকার জন্য তিনি আমার মেয়ের খোঁজ করতে তৃতীয় তলাতে যাননি। অথচ তিনি কাল আমাদের জানিয়েছিলেন তিনি স্কুলের সমস্ত ঘর এবং টয়লেট খুঁজে এসেছেন।'

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে অপর্ণা এই মুহূর্তে 'ট্রমা'তে রয়েছে। তার চিকিৎসা শুরু হয়েছে। 

আকর্ষণীয় খবর