By-Poll: ‘‌ওঁর মাথায় পিস্তল ধরিনি‌’‌, সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থীকে তীব্র আক্রমণ অধীরের

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সামশেরগঞ্জ বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। তার পর আচমকা ওই কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী জেদুর রহমান জানিয়ে দেন, তিনি ভোটে লড়তে চান না। এই সিদ্ধান্তকে তীব্র সমালোচনা করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি। বৃহস্পতিবার বহরমপুরে অধীর চৌধুরি বলেন, ‘‌আমরা ওঁর মাথায় পিস্তল ধরে কংগ্রেসের প্রার্থী হতে বাধ্য করিনি।’‌ 
আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ভবানীপুর কেন্দ্রের উপনির্বাচনের সঙ্গে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে বিধানসভা নির্বাচন হতে চলেছে। সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রের প্রার্থী জেদুর রহমান হঠাৎই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় বিপাকে পড়েছে কংগ্রেস। ফলে কংগ্রেসকে ঘোষণা করতে হয়েছে, ওই কেন্দ্রে বামফ্রন্ট প্রার্থী মোদস্‌সর হোসেনকে তারা সমর্থন করবে।
অধীর চৌধুরি আজ বলেন, 'আমরা কংগ্রেস প্রার্থীর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে বা ওঁকে জোর করে ভোটে দাঁড় করাইনি। ভোট ঘোষণার বহু আগে ওঁর পরিবারের সম্মতি নিয়ে এবং ওঁকে সম্মান দিয়ে কংগ্রেসের প্রার্থী করা হয়েছিল।' 
নিজের দলের প্রার্থীর নাম না করে অধীর বাবু বলেন, 'আমরা জানতাম ওই প্রার্থীর গোটা পরিবার তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক। তাই ভোটে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে নাম ঘোষণার আগে ওঁর পরিবারের সম্মতি নেওয়া হয়েছিল। ওঁর পরিবারও জানিয়েছিল উনি প্রার্থী হলে তাদের কোনও আপত্তি নেই। সামশেরগঞ্জ  ব্লকের সমস্ত কর্মীদের সামনে উনি জানিয়েছিলেন উনি কংগ্রেসের হয়ে ভোটে লড়বেন এবং প্রচারও শুরু করেছিলেন।'  
প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অভিযোগ করেন, 'উনি নিজেকে বড় ব্যবসাদার বলে দাবি করছেন। কিন্তু ব্যবসায়ীর বিশ্বাসযোগ্যতা থাকা দরকার।' 
এরপর অধীরবাবু বিস্ফোরক অভিযোগ করে বলেন, 'আমাদের দলের সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রে যিনি কংগ্রেস প্রার্থী হয়েছেন, তাকে প্রার্থী করার আগে তাঁর দাদার সম্মতি নেওয়া হয়েছিল।' প্রসঙ্গত, সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী জেদুর রহমানের বড় দাদা খলিলুর রহমান জঙ্গিপুরের তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ এবং তৃণমূল কংগ্রেসের জঙ্গিপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি।
অধীর বাবু বলেন, 'ওই কেন্দ্রে এখন তৃণমূলের যিনি প্রার্থী, তাঁকে হারাতে উদ্যোগী হয়েছিল ওই পরিবার (পড়ুন জেদুর ও খলিলুর রহমানের পরিবার)‌‌। তাই তারা তখন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।' 
প্রসঙ্গত কিছুদিন আগে পর্যন্ত সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আমিরুল ইসলাম জেলার রাজনীতিতে খলিলুর রহমানের বিরোধী হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। ভোটের দিন ঘোষণার পর তাঁদের সম্পর্কের 'শৈত্য ' কিছুটা কমেছে বলে খবর। 
প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ' ওই পরিবার স্বেচ্ছায় আমাদের কাছে এসেছিলেন প্রার্থী হওয়ার জন্য। এখন হঠাৎ করে বলছে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতি ভালোবাসা এবং ব্যবসার কারণে উনি দাঁড়াতে চান না। আমি কংগ্রেস প্রার্থীর কাছে জানতে চাই ওঁর যদি তৃণমূলের প্রতি ভালবাসা আগে থেকেই থাকে তাহলে উনি কংগ্রেসের হয়ে কেন প্রার্থী হতে গেলেন?'