দীপঙ্কর নন্দী: কালই ২১ জুলাইয়ের শহিদ সমাবেশ। বৃহস্পতিবার রাত থেকে বিভিন্ন জেলা কর্মীরা কলকাতায় আসতে শুরু করেছেন। মঞ্চ প্রায় প্রস্তুত। জলপাইগুড়ি, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া জেলার কর্মীরা রয়েছেন আলিপুরে উত্তীর্ণতে। শুক্রবার সন্ধ্যায় নবান্ন থেকে উত্তীর্ণতে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। জেলা থেকে যাঁরা এখানে এসেছেন, তাঁদের সঙ্গে তিনি কথা বলেন। সব ব্যবস্থা ঠিক আছে কি না তাও জেনে নিয়েছেন তিনি। ছিলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেস সভাপতি অভিষেক ব্যানার্জি। ধর্মতলায় মঞ্চের সামনে দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি সাংবাদিকদের বলেন, ‘অতীতের ‌ভিড়ের রেকর্ড আমরাই ভাঙব। মমতা ব্যানার্জি কারোর পরামর্শ নিয়ে বক্তৃতা করেন না। তিনি অন্তর থেকে কর্মীদের উদ্দেশ্যে বার্তা দেন। জঙ্গলমহলের নেতাদের সঙ্গে  আমার কথা হয়েছে। তাঁরা সকলেই সমাবেশে আসবেন।’‌ বিজেপি এক কোটি সদস্য করবে বলে জানিয়েছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে পার্থ বলেন, ‘‌এক হাজার সদস্য করার ক্ষমতা নেই ওদের।’‌ এদিন মঞ্চের পিছনের দিকে বসেছিলেন রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি। 
শুক্রবার ভোরে শিয়ালদা স্টেশনে শিবিরে গিয়েছিলেন মৌসম নুর, অর্পিতা ঘোষ, জীবন সাহা, তমোঘ্ন ঘোষ প্রমুখ। আলিপুরদুয়ার, বালুরঘাট, মালদা থেকে এদিন ভোরে অনেকেই আসেন। তাঁদের স্বাগত জানান মৌসম, অর্পিতা। কলকাতার সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্ক, কসবার গীতাঞ্জলি স্টেডিয়াম, আলিপুরে উত্তীর্ণ, ক্ষুদিরাম অনুশীলন কেন্দ্রে কর্মীদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।ক্ষুদিরাম অনুশীলন কেন্দ্রে গিয়েছিলেন অরূপ বিশ্বাস, তাপস রায়, অভিষেক ব্যানার্জি, সৌম্য বক্সি, বিজয় উপাধ্যায় প্রমুখ। গীতাঞ্জলি স্টেডিয়ামে কর্মীদের দেখতে যান অভিষেক। আমহার্স্ট স্ট্রিটে পিয়াল চৌধুরি মিছিল করেন। 
২১ জুলাই ঘিরে চারিদিকে উন্মাদনা সৃষ্টি হয়েছে। ধর্মতলায় অনেকেই মঞ্চ দেখতে এসেছেন। কর্মীদের মধ্যে উৎসাহ তুঙ্গে। আজ দুপুরের মধ্যে কলকাতা ভরে যাবে। মঞ্চের ব্যাকড্রপে বিশাল ফ্লেক্স লাগানো হয়েছে। তাতে মমতার ছবি। গণতন্ত্র ফিরিয়ে দাও, ইভিএম নয়, ব্যালট ফেরাও। সুবিশাল এই ফ্লেক্স দেখে অনেকেই মুগ্ধ। শহিদ পরিবারদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। প্রায় সব জেলা থেকেই ধর্মতলায় লোক আসবেন। স্বেচ্ছাসেবকদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। টলিউডের শিল্পীরাও আসবেন। এছাড়া দলের সাংসদ, বিধায়ক ও অন্য পদাধিকারীদের বসার আলাদা জায়গা করা হয়েছে। তৃণমূলের নেতারা এদিন জানিয়েছেন, মমতার বক্তৃতা শোনার জন্য সকলেই অপেক্ষা করে আছেন। 
গতবারে ২১ জুলাই ঘিরে যে উন্মাদনা ও আবেগ দেখা গিয়েছিল, এবারও তার কোনও ব্যতিক্রম চোখে পড়েনি। বরঞ্চ এবার যেন উৎসাহ আরও বেশি। এদিন মহিলা কংগ্রেসের সভানেত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে দলিতদের খুনের প্রতিবাদে ময়দানে গান্ধীমূর্তির সামনে মোমবাতির মিছিল হয়। ছিলেন শশী পাঁজা, দোলা সেন প্রমুখ। ২১ জুলাই উপলক্ষে এবার মহিলাদের আগমন আরও বেশি হবে বলে চন্দ্রিমা জানিয়েছেন। শুক্রবারও রাজ্য জুড়ে প্রস্তুতি সভা হয়েছে। রাজ্য নেতারা মিটিং মিছিল করেছেন। আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ধর্মতলায় এসে মঞ্চের প্রস্তুতি দেখে যাওয়ার কথা।

 

২১ জুলাই মঞ্চ নির্মাণ তদারকি করছেন সুব্রত বক্সি। ধর্মতলায়, শুক্রবার। ছবি: বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top