আজকালের প্রতিবেদন: ‘বাবলু বলেই এসেছি। বলতে পারেন চিকিৎসকদের নির্দেশ অমান্য করেই এ‍লাম। গত বুধবার আমার চোখে অপারেশন হয়েছে। ডাক্তাররা বাড়ির বাইরে বেরতে নিষেধ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু বাবলুর জন্মদিনে আসব না? বাবলু কত বড় ফুটবলার, সেটা আমার বলার অপেক্ষা রাখে না। আমি বলতে চাই, বাবলু কত বড় মানুষ সেটা অনেকেই জানেন না। আর বাবলুর মুখ যদি সেলাই করে দেওয়া যেত, তাহলে বাবলু আরও কত কিছু করতে পারত সেটা ও নিজেই জানে না। আমি ওকে বলি, তুই তিরস্কার করবি আর পুরস্কারে আশা করবি সেটা হয় না। তুই তিরস্কার করার জন্যই যে জন্মেছিস। সেটাই করে যা।’ সুভাষ ভৌমিকের এই মন্তব্যে শ্যামনগরের ভর্তি রবীন্দ্রভবনে যেভাবে হাততালির ঝড় উঠল, তা মনে থাকবে বহু দিন।
আর তিনি কী করছেন ‘ভোম্বলদা’–র এমন মন্তব্য শুনে? লজ্জায় যেন আরও লাল হয়ে উঠলেন ‘বার্থডে ম্যান’। হ্যাঁ, সুব্রত ভট্টাচার্যের ৬৫তম জন্মদিন এভাবেই জমিয়ে দিলেন সুভাষ ভৌমিক। যিনি শনিবার বিকেলে শ্যামনগরে পৌঁছেই সুব্রতর হাতে তুলে দিয়েছিলেন ব্র্যান্ডেড কোম্পানির টাই। ‘তুই তো টাই পরতে ভালবাসিস। তোর জন্য এটা।’ আর সুব্রত বলে ওঠেন, ‘ভোম্বলদা তোকে বলেছিলাম তুই আমার জন্য কিছু আনবি না। সেই নিয়ে এলি!’ গলা জড়িয়ে ধরলেন দুই বন্ধু।
সুব্রত ভট্টাচার্য ফ্যান ক্লাব শনিবার ঘটা করেই সুব্রতর আঁতুড়ঘর শ্যামনগরে তাঁর জন্মদিন পালন করল। মঞ্চে যেন চাঁদের হাট। কে নেই সেই মঞ্চে! গৌতম সরকার, সমরেশ চৌধুরি, প্রশান্ত ব্যানার্জি, মিহির বসু, বেঙ্গল অলিম্পিক কর্তা বাবুন ব্যানার্জি এবং সুব্রতর ছোটবেলার কোচ মুরারী শূর। ছিলেন নৈহাটির স্থানীয় বিধায়ক পার্থ ভৌমিকও। জন্মদি‍নের কেক কাটতে সুব্রত সেই ডেকে নিলেন একদা তাঁর সতীর্থদেরই। সুভাষ, গৌতম, সমরেশ, প্রশান্ত, মিহিরকে সঙ্গে নিয়ে কাটলেন কেক।
আপ্লুত সুব্রত। ‘আমি ভাবতেই পারিনি আমার ফ্যান ক্লাবের বাচ্চারা এবং তাদের অভিভাবকরা এভাবে আমার জন্মদিন পাল‍ন করবে। সত্যি আমি অভিভূত। সারা বছরই নানান কিছু ব্যস্ততায় জীবন কাটলেও, এই দিনটা সত্যি বিশেষ। শ্যামনগর এভাবে আমাকে উজাড় করে দেবে তা ভাবতেই পারিনি।’
জন্মদিনের ফাঁকেই আই লিগ নিয়ে মন্তব্য করলেন সুব্রত ভট্টাচার্য। মনে করিয়ে দিলেন তাঁর কোচিংয়ের মোহনবাগানের আই লিগ জয়ের কথা। ‘ইস্টবেঙ্গলের মতোই আমার তখন অবস্থা। চার্চিলের বিরুদ্ধে ড্র করলেই আর আই লিগ পাব না। সেই ম্যাচ আমরা ১ গোলে পিছিয়ে থেকেও জিতেছিলাম। খালিদের দল জিতছে কিন্তু কর্তৃত্ব দেখিয়ে নয়। খালিদের পরিকল্পনার অভাব রয়েছে। তবে যে জায়গায় ইস্টবেঙ্গল রয়েছে, সেখান থেকে আই লিগ না–‌জেতার অর্থ হয় না।’‌‌

জন্মদিন। সুব্রত ভট্টাচার্যকে মিষ্টিমুখ করাচ্ছেন সুভাষ ভৌমিক। শ্যামনগরে। ছবি:‌ রনি রায়

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top