সংবাদ সংস্থা, মুম্বই: তাঁর অগণিত ভক্ত কিছুটা হলেও মুষড়ে পড়তে পারেন। কারণ বয়সটা যে আস্তে আস্তে বাড়ছে, সেটা উপলব্ধি করার সময় এসেছে। খোদ বিরাট কোহলি নিজেই এটা উপলব্ধি করছেন। 
আপাতত বিশ্রামে রয়েছেন। একটি ঘড়ির বিজ্ঞাপনের অনুষ্ঠানে ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘‌আমার অল্পবিস্তর চোট রয়েছে। সেগুলো সারিয়ে উঠছি। কিন্তু মনে হচ্ছে হাড় ভাঙা পরিশ্রমটা আর শরীর নিচ্ছে না। আমার শরীর, মন, ক্রিকেট সবকিছু নিয়ে আমাকে খুব সাবধানে এগোতে হবে।’‌ 
এই বিশ্রামটা যে দরকার ছিল, সেটা জানিয়ে কোহলি বলেন, ‘‌এই সময়গুলো খুব খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমি দারুণ উপভোগ করছি। সেটা করতে গিয়ে একটা ইঞ্চিও ছাড়ছি না। সত্যিই এই বিশ্রামটা আমার শরীরের অত্যন্ত প্রয়োজন ছিল। যদিও খোঁজখবর রাখছি, কিন্তু এখন একেবারেই টিমের খেলা দেখছি না। এখন একেবারেই মনে হচ্ছে না, মাঠে থাকলে ভাল হত। কারন, এবার শরীরের কথা শুনতে শুরু করেছি।’‌
আইপিএলে যে সেরা ছন্দেই তাঁকে দেখা যাবে, সে বিষয়ে আশ্বস্ত করে কোহলি বলেন, ‘‌এই বিশ্রামটা শেষ হলেই আইপিএলে আবার তরতাজা হয়ে নামব। মাঠে নেমে মানসিক ভাবে আরও ভাল জায়গায় থাকব। দীর্ঘদিন ধরে একটানা খেলে যাচ্ছি। ম্যাচ মিস করেছি বলে মনে পড়ছে না। কিন্তু শরীরকে তো সমীহ করতেই হবে। এখন তো ঘণ্টার পর ঘণ্টা চুপচাপ বসে কাটিয়ে দিচ্ছি। মাঠে নেমে আমাকে যতটা চনমনে দেখেন, ঘরে ঠিক উল্টো। একেবারে কুঁড়ের বাদশা। নড়িই না। যারা থাকে, তারা তো রেগে যায়।’‌‌
রজার ফেডেরারের উদাহরণ দিয়ে কোহলি বলেন, ‘‌রজার আমার বরাবরের ফেবারিট। যখন খেলে, সেটা সুন্দর লাগে। এখন পরিবার হয়ে গেছে। কোনটা অগ্রাধিকার দেবে, সেটা ঠিক করে ফেলেছে। কে কী বলল, তার তোয়াক্কা না করে ইচ্ছে মতো কোর্ট থেকে সরে দাঁড়াচ্ছে। তারপর আবার ফিরে এসে ৩৬ বছর বয়সে গ্র‌্যান্ডস্লাম জিতছে। সব নিয়ম, যুক্তি ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে নতুন করে শেখাচ্ছে। প্রায় রোজ নতুন নতুন নিয়ম শেখাচ্ছে। এটাই আমার দারুণ পছন্দের। আমিও নিয়মের যাঁতাকলে থাকতে পছন্দ করি না।’‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top