অগ্নি পাণ্ডে, কল্যাণী: পরপর দু’ম্যাচ হেরে রবিবার ডার্বিতে নামবে ইস্টবেঙ্গল।
রবিবার কী করবেন কোচ আলেসান্দ্রো? বিপক্ষে বেইতিয়া, বাবা ডিওয়ারারা রয়েছেন। বেইতিয়ার বাড়ানো পাস ধরে মোহন ফুটবলাররা তছনছ করে দিচ্ছেন বিপক্ষকে। সেখানে এই ডিফেন্স নিয়ে কী করবেন ময়দানের ‘আলে স্যর’? যাঁরা মনে করেন আলেসান্দ্রো প্রায় স্যর অ্যালেক্স ফার্গুসনের কাছাকাছি!
গোকুলামের বিরুদ্ধে যে এলোমেলো, ছন্নছাড়া ফুটবল খেলল ইস্টবেঙ্গল, তেমন খেললে ডার্বিতে কিবু ভিকুনার দলের বিরুদ্ধে সমস্যা আছে। 
বুধসন্ধ্যায় কল্যাণীতে ম্যাচের ৮ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে ইস্টবেঙ্গলের হুয়ানের বাঁ পায়ের দূরপাল্লার শট গোকুলাম গোলকিপার উবেদের হাতে লেগে পোস্টে লাগে। এটাই একমাত্র ইতিবাচক আক্রমণ। ১৪ মিনিটে লাল–হলুদ বক্সে ডান দিক থেকে সেন্টার। আশির আর কমলপ্রীতের ভুলে বল পেয়ে গিয়ে কিেসকা চকিতে শট নিলেন। কোনওক্রমে বাঁচালেন ইস্টবেঙ্গল গোলকিপার রালতে। আবার ফিরতি বলে শট মার্কোস জোসেফের। সেটাও বাঁচালেন রালতে।  
২০ মিনিটেই এগিয়ে গেল গোকুলাম। ডান দিক থেকে কিসেকাকে বল বাড়িয়েছি‍লেন সেবাস্টিয়ান। কিসেকা বক্সে কাটালেন অভিষেক আম্বেকারকে। বাঁ পায়ে বাঁকানো শটে গোকুলামকে এগিয়ে িদলেন (১–০)। ২৭ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরাল ইস্টবেঙ্গল। খানিকটা ফ্লুকেই। ডিকার  ফ্রি–কিক েথকে আশিরের হেড দ্বিতীয় পোস্টে লেগে ফিরে আসতে ফাঁকায় থাকা কাশিম আইদারা গোলে ঠেলতে ভুল করেননি।
ইস্টবেঙ্গল কোচ আলেসান্দ্রো কী করছেন? এমন ডিফেন্স নিয়ে আই লিগ জেতা তো দূরের কথা, স্বপ্ন দেখাও উচিত নয়। দুই সাইডব্যাক কমলপ্রীত এবং অভিষেককে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেল। স্টপার মার্তি আর আশির যেন একে অপরকে চেনেন না। এত তালমিলের অভাব! তার থেকেও বড় অভাব ডিফেন্সের সঙ্গে মাঝমাঠের যোগাযোগে। বিশাল গ্যাপ। সেখান দিয়েই বারবার আক্রমণ শানাল গোকুলাম। অনেক বেশি পাসিং ফুটবল খেলতে দেখা গেল স্যান্টিয়াগোর ফুটবলারদের। কিসেকা, জোসেফকে ধরে রাখতে হিমশিম খেল ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্স। ফলস্বরূপ প্রথমার্ধের ইনজুরি সময়ে মার্কোসের শট ক্লিয়ার করতে গিয়ে বল রিসিভ করে নিজের গোলে ঢুকিয়ে দিলেন ইস্টবেঙ্গলের ডিফেন্ডার মার্তি! 
দ্বিতীয়ার্ধেও একই ছবি। ৬৫ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাকে কিসেকা বল ঘুরিয়ে আশিরের মাথার ওপর দিয়ে পাঠান জোসেফকে। জোরালো শট রালতে বাঁচালেনও বল ছিটকে যেতে ফিরতি বলে গোল করে গেলেন জোসেফ। 
আলেসান্দ্রোর দলে কারও সঙ্গে কারও কোনও মিল নেই। ফুটবলাররা বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মতো ঘুরে বেড়ালেন মাঠে। ঘরের মাঠে পাঁচ বিদেশি নিয়েও তিন বিদেশিতে খেলা গোকুলামের কাছে হেরে গেলেন আলেসান্দ্রো। বিদেশি ফুটবলার রিক্রুট নিজেই করেছেন। কল্যাণীতে কলকাতা লিগ খেলতে এলেন না। ওয়াকওভার দিয়ে দিলেন স্পেনে ফিরে যাবেন বলে। 
এবার সমর্থকদের কী উত্তর দেবেন ‘আলে স্যর’?
ইস্টবেঙ্গল: রালতে, মার্তি, আশির, কমলপ্রীত, অভিষেক, কাশিম, ডিকা (নাওরেম), পিন্টু (রোনাল্ডো), হুয়ান, কোলাডো, মার্কোস।‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top