সংবাদ সংস্থা
দিল্লি, ১২ জুলাই

এবার ভারতীয় দলের অস্ট্রেলিয়া সফর গতবারের থেকেও কঠিন হবে। তবে এই দলের ব্যাটিং, বোলিং যথেষ্ট শক্তিশালী। তাই তাঁর আশা, সিরিজ জিততে সমস্যা হবে না। অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে জয়ের প্রত্যাশার কথা জানিয়েছেন খোদ বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি।
এক সাক্ষাৎকারে সৌরভ বলেন, ‘‌আমি তো বিরাটকে বলেছি, তোমার মান অনেক ওপরে। যখন তুমি খেলতে নাম, যখন মাঠে থাক, আমি টেলিভিশনের সামনে বসে দেখি। তাই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভাল খেলবে, শুধু এই প্রত্যাশা থাকবে না। আশা করব জিতবে। তুমি মানদণ্ড স্থির করে দিয়েছ। তোমাকে সেই অনুযায়ী চলতে হবে।’‌
২০১৮–১৯ মরশুমে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথমবার টেস্ট সিরিজ জয়ের নজির গড়েছিল ভারত। চার ম্যাচের সিরিজ ২–১ জিতেছিলেন বিরাটরা। নির্বাসনে থাকায় সেবার স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার খেলেননি। এবার চ্যালেঞ্জ কঠিন, স্বীকার করে নিয়েছেন সৌরভ। বিসিসিআই সভাপতির কথায়, ‘‌অবশ্যই কঠিন সিরিজ হতে চলেছে। ২০১৮ সালে ছবিটা অন্য ছিল। এবারের অস্ট্রেলিয়া অনেক শক্তিশালী। তবে আমাদের দলও যথেষ্ট ভাল। ব্যাটিং, বোলিং সব বিভাগেই। আরও ভাল ব্যাট করতে হবে। বিদেশে সেই দলই ভাল, যারা ভাল ব্যাটিং করতে পারে। আমরাও ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তানে সফল হয়েছিলাম ৪০০, ৫০০, ৬০০ রান তুলেই।’‌
করোনায় ক্রিকেটাররা গৃহবন্দি। অবশ্য পুজারা, সামির মতো কেউ কেউ ট্রেনিং শুরু করেছেন। মাঠে নামলে কেউ যেন চোট–আঘাতে না ভোগেন, সে বিষয়েও বিরাটের সঙ্গে কথা বলেছেন সৌরভ। বলেন, ‘‌বিরাটকে বলেছি, ফিট থাকতে হবে। প্রায় ছয় মাস তোমরা ক্রিকেটের বাইরে। নেমেই বোলাররা চোটে ভুগবে, তুমি নিশ্চয়ই সেটা চাইবে না। ট্রেনিং শুরু করলেও মাঠে খেলাটা অন্য। এই সিরিজের জন্য সামি, বুমরা, ইশান্ত, হার্দিকের ম্যাচ ফিট হয়েই অস্ট্রেলিয়ায় পা রাখতে হবে।’‌
দেশের বড় শহরগুলোর বর্তমান পরিস্থিতি ভাবাচ্ছে বোর্ডকে। সৌরভের কথায়, ‘‌বোর্ড ও এনসিএ (‌জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমি)‌ ক্যাম্প শুরু নিয়ে কাজ করছে। সেটা তৈরি হয়ে গেলেই রাজ্য সংস্থাগুলোকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে এখনই শিবির শুরুর সম্ভাবনা নেই। মারাত্মক ঝুঁকি হয়ে যাবে। অপেক্ষা করতেই হবে।’‌ অক্টোবরে আইপিএলের সম্ভাবনা প্রসঙ্গে সৌরভ বলেন, ‘‌সেক্ষেত্রে আগস্ট–সেপ্টেম্বরে ক্রিকেটারদের একত্রিত করা হবে। তবে একটা সিরিজ বা একটা আইপিএলের থেকে ক্রিকেটারদের সুরক্ষা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং সবকিছুই পরিস্থিতি বুঝে।’‌
বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ক্রিকেট বোর্ড চালানোর কাজটা যে মোটেও সহজ নয়, স্বীকারোক্তি সৌরভের। বলেন, ‘‌আট মাসের জন্য বোর্ড সভাপতি হয়েছি। তার মধ্যে গত চার মাস কোভিড ছিনিয়ে নিল। এখন বোর্ডের অফিস বন্ধ। যাবতীয় কাজ হচ্ছে ভিডিও কনফারেন্সে। কোনও কিছুই আমাদের হাতে নেই। এরপর মেয়াদ বাড়ানো হলে থাকব, না হলে সরে যাব। অন্য কেউ আসবে।’‌ আইসিসি চেয়ারম্যানের দৌড়ে তাঁর নাম ভেসে উঠলেও সৌরভ বলছেন, ‘‌দিনের শেষে সবকিছুই নির্ভর করবে তোমার বোর্ড কী বলছে তার ওপর। তবে এটায় আমার কোনও তাড়া নেই। কারণ, এখন বয়স কম। ভবিষ্যতেও আমার সুযোগ থাকবে।’‌(ফাইল ছবি)

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top