সংবাদ সংস্থা, দিল্লি ও সিডনি: এবারের আইপিএল না হলে কোনও টাকা পাবেন না চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটাররা। এমনই চিন্তাভাবনা করছে ফ্র‌্যাঞ্চাইজিগুলো। প্রতিযোগিতা শুরুর এক সপ্তাহ আগে ১৫ শতাংশ, প্রতিযোগিতা চলাকালীন ৬৫ শতাংশ এবং বাকি ২০ শতাংশ দেওয়া হয় আইপিএল শেষ হওয়ার পর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে। তবে আইপিএল না হলে ক্রিকেটারদের যে টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা নেই, তেমনই জানিয়েছেন একটি ফ্র‌্যাঞ্চাইজির কর্তা। যদিও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমল জানিয়েছেন আইপিএল না হলে ক্রিকেটাররা টাকা পাবেন না, এমন কোনও আলোচনা এখনও হয়নি। অন্য দিকে ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অশোক মালহোত্রার মতে, টাকা না পেলে সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন ঘরোয়া ক্রিকেটাররা। 
করোনাভাইরাসের জেরে আইপিএল আপাতত স্থগিত রয়েছে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত। কিন্তু এইমুহূর্তে বড় প্রশ্ন হল আদৌ কি এই বছরে আইপিএল হবে। করোনার প্রভাবে বিশ্ব জুড়ে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে আইপিএল হওয়ার সম্ভাবনা খু্বই কম। কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এখনই হাল ছাড়তে নারাজ। আগস্ট–সেপ্টেম্বর অথবা অক্টোবর–নভেম্বরে আইপিএল করা যায় কিনা, তা নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন বোর্ডকর্তারা।
ক্রোড়পতি ক্রিকেট লিগের সৌজন্যে প্রতিবছরই বোর্ডের কোষাগারে বিশাল অঙ্কের টাকা ঢোকে। যা হাতছাড়া করতে নারাজ বিসিসিআই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বোর্ডের এক শীর্ষকর্তা বলেছেন, ‘‌আমরা নিয়মিত পরিস্থিতির পর্যালোচনা করছি। সেভাবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আপাতত আমরা তাকিয়ে রয়েছি আগস্ট–সেপ্টেম্বর উইন্ডোর দিকে।’‌ আগামী চার মাসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে গেলে আইপিএল আয়োজন করতে সবদিকই খোলা রাখতে চাইছে ভারতীয় বোর্ড। প্রয়োজনে প্রতিযোগিতার দিন কমানো হতে পারে। এমনকী, শুধুমাত্র ভারতীয় ক্রিকেটারদের নিয়েও আইপিএল হতে পারে। 
সূচি অনুযায়ী আগামী সেপ্টেম্বরে এশিয়া কাপে খেলার কথা ভারতের। ইংল্যান্ডের সঙ্গে খেলা রয়েছে তিনটি করে একদিনের এবং টি২০ ম্যাচ। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে পাকিস্তান এবং আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ শেষ হবে ইংল্যান্ডের। দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষ হবে ১৬ আগস্ট। এই দু’‌মাসে অস্ট্রেলিয়ার কোনও খেলা নেই। এশিয়া কাপ এবং আইপিএল দেখানোর কথা স্টার স্পোর্টসে। সেক্ষেত্রে ভারতীয় বোর্ড চাপ দিতে পারে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের ওপর, যাতে তারা এশিয়া কাপ স্থগিত করে দেয়। আইপিএল না হয়ে এশিয়া কাপ হলে স্টার স্পোর্টসেরও ক্ষতি হবে বেশি। ফলে এই ব্যাপারটাও বোর্ডকে আশায় রেখেছে। বিসিসিআই–এর আর একটি সূত্র জানাচ্ছে, যদি আগামী টি২০ বিশ্বকাপ বাতিল করে দেয় আইসিসি, সেক্ষেত্রে অক্টোবর–নভেম্বরে আইপিএল আয়োজন করতে পারে ভারতীয় বোর্ড। 
করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে অনেকেই লড়াই করছেন। তাঁদের সমর্থনের জন্য অভিনব সিদ্ধান্ত নিলেন অসি ক্রিকেটার ডেভিড ওয়ার্নার। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যাঁরা লড়াই করছেন তাঁদের পাশে দাঁড়ালেন মাথা ন্যাড়া করে। পাশাপাশি স্টিভ স্মিথ ও বিরাট কোহলিকেও মাথা ন্যাড়া হওয়ার জন্য চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন ইনস্টাগ্রামে ভিডিও পোস্ট করে।‌‌‌ করোনার জেরে আগামী মরশুমের কেন্দ্রীয় চুক্তি তৈরিতে দেরি হচ্ছে, কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে তা মেনে নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন। ‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top