সংবাদ সংস্থা, লন্ডন: বিশ্বের সবথেকে পুরনো ফুটবল ট্রফির লড়াইয়ে কাল মুখোমুখি হতে চলেছে লন্ডনের দুই প্রতিবেশী চেলসি ও আর্সেনাল। কাকতালীয় হলেও, দুই দলেরই দায়িত্বে প্রাক্তন খেলোয়াড়রা। চেলসির ফ্র‌্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড এবং আর্সেনালের মিকেল আরতেতা, দু’‌জনেই নিজ ক্লাবের হয়ে একাধিকবার এফএ কাপ জিতেছেন। এবার কোচ হিসেবে অন্যরকম পরীক্ষার সামনে তাঁরা।
মর্যাদার লড়াই হলেও, শনিবারের ম্যাচ আর্সেনালের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ইপিএলে চতুর্থ স্থানে শেষ করে চেলসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলেও, আর্সেনাল শেষ করেছে অষ্টম স্থানে। ফলে সামনের মরশুমে ইওরোপীয় প্রতিযোগিতায় খেলতে পারবে না। তবে আরতেতার ছেলেরা এফএ কাপ জিততে পারলে ইউরোপা লিগে খেলার সুযোগ মিলবে। ম্যাচের আগের দিন আরতেতার মুখে সেই কথাই। বলেছেন, ‘‌এই ক্লাবের জন্যে সবথেকে সেরা ফলই আশা করি। প্রতিটা খেতাবের জন্যে আমরা লড়াই করব। ইপিএলে কী হয়েছে সবাই জানি। যদিও এফএ কাপ জিতলে ইউরোপা লিগে আমরা খেলতে পারব। তাও বলব, এই ক্লাবের জন্যে সেটা খুব গর্বের ব্যাপার নয়। আমাদের আসল লক্ষ্য আরও বেশি।’‌ করোনাভাইরাসের কারণে এমনিতেই ক্লাবগুলির অবস্থা খারাপ। এর মধ্যে ইওরোপে না খেলায় ২৭০ লক্ষ পাউন্ড ক্ষতি হয়েছে তাদের। তাই ক্লাবের আর্থিক দিকটাও মাথায় রাখছেন আরতেতা। তাঁকে আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে ইপিএলে চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল এবং রানার্স ম্যাঞ্চেস্টার সিটির বিরুদ্ধে জয়।
প্রথম মরশুমেই কোচ হিসেবে সাফল্য পাওয়া ল্যাম্পার্ড কিছুটা হলেও সতর্ক। বলেছেন, ‘‌ফাইনালে পৌঁছলে জেতাই সবার লক্ষ্য থাকে। তবে এটাও জানি অনেক নামী কোচ এই ট্রফিতে হাত দিতে পারেননি। তাই আমি আরও বেশি করে জিততে চাই।’‌ বিশালাকায় ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে সমর্থকদের অনুপস্থিতিতেও ভীত নন তিনি। বলেছেন, ‘‌একটু অদ্ভুত লাগবে। তবে আমরা ইতিমধ্যেই ফাঁকা স্টেডিয়ামে অনেক ম্যাচ খেলে অভ্যস্ত। তাই সমস্যা হবে না।’‌ শুধু দর্শকশূন্য গ্যালারিতে খেলা হবে তাই নয়, চ্যাম্পিয়ন ট্রফি বিজয়ী দলের হাতে তুলে দিতে হাজির থাকবেন না প্রিন্স উইলিয়ামও। তবে ‘‌ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারকে’‌ সমর্থন করে ফাইনাল শুরুর আগে দুই দলের ফুটবলাররা হাঁটু মুড়ে বসে প্রতিবাদ জানাবেন। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top