আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বিসিসিআইয়ের পরবর্তী সভাপতি কে হবেন?‌ রবিবার এই নিয়েই আলোচনা চলছিল ক্রিকেটমহলে। দিনের শেষে সেই ছবিটা যেন জলের মতো পরিস্কার হয়ে গেল। বড় কিছু না ঘটলে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পরবর্তী সভাপতি হতে চলেছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। অন্তত বোর্ডের অন্দরের খবর তেমনই। তবে সোমবার যেহেতু মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন, তাই এখনই সরকারি ঘোষণা হবে না। ভিতরের খবর সৌরভকেই সভাপতি করা হবে। তবে এর আগে এই পদের জন্য এগিয়ে ছিলেন শ্রীনি ঘনিষ্ঠ ব্রিজেশ প্যাটেল। কিন্তু হঠাৎই তিনি সভাপতির দৌড় থেকে ছিটকে যান। অন্যদিকে, অমিত শাহের ছেলে জয় শাহ হতে পারেন সচিব। সৌরভের শীর্ষ পদে বসার সম্ভবনা বা কোনও খবর এতদিন সংবাদমাধ্যমের কাছে ছিল না। হঠাৎ তিনি উঠে এলেন আলোচনায়। তবে কোনও খবরই এখনও নিশ্চিত নয়। ঘোষণা এখনও হয়নি। তবে তাতে কী, সৌরভ মোটামুটি পরবর্তী বিসিসিআই সভাপতি পদে লক্ষ্মীপুজোর রাতেই নিশ্চিত হয়ে গেলেন। রবিবার মধ্যরাত পর্যন্ত এই খবর নিয়ে টানাপোড়েনের পর চিত্রটা স্পষ্ট হল বারোটা নাগাদ। আগামী ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সিএবির প্রধান পদে তাঁর মেয়াদ ফুরোচ্ছে। তার আগেই তিনি বসে যাবেন সর্বভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের শীর্ষ পদে। এ যেন এক বাঙালি সন্তানের স্বপ্নের উড়ান। জাতীয় টেস্ট দলে সুযোগ পেতে তাঁকে অনেক লড়াই করতে হয়েছিল। এক চান্সে নিজেকে প্রমাণ করেছিলেন তিনি। ভারতীয় ক্রিকেটের আধুনিকতার জনকও তাঁকেই বলা যায়। আধুনিক ফিটনেসে প্রাণবন্ত, চনমনে লড়াকু ভারতীয় দল তৈরি হয়েছিল তাঁর নেতৃত্বেই। অবসরের পরে এসেছিলেন ক্রিকেট প্রশাসনে। বাংলার ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্ব তিনি সামলেছেন দক্ষতার সঙ্গে। ধারাভাষ্যকার হিসাবেও কাজ করছিলেন। এর মাঝেই দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট প্রশাসকের পদে বসাটা মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে গেল। তবে দিনের শেষে একটা খটকা থেকেই যাচ্ছে। একটা না, খটকা অনেকগুলোই। কাল যদি সত্যিই আনুষ্ঠানিক ভাবে সৌরভের নাম ঘোষণা করা হয়, তারপর ভারতীয় ক্রিকেট মানচিত্রে যে এই কলকাতার মহারাজা আবার নতুন কোনও বিপ্লব ঘটাবেন না, তা হলফ করে বলা যায় না। সুতরাং কাল ভারতীয় ক্রিকেট প্রশাসনের ইতিহাসে এক সন্ধিলগ্ন, যার দিকে তাকিয়ে থাকবে গোটা বিশ্ব। 

 

 

 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top