সংবাদ সংস্থা, দিল্লি: টেস্ট ক্রিকেটে ওপেনার হিসেবে প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরি। প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ইতিহাস বইয়ে নাম তুলে ফেলা রোহিত শর্মাকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত শোয়েব আখতার।
সীমিত ওভারের ক্রিকেটে রোহিত ইতিমধ্যে নিজেকে সেরার পর্যায়ে তুলে নিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু টেস্টে তাঁর দক্ষতা নিয়ে নানা মহলে নানা সংশয় ছিল। ফলে বিশাখাপত্তনমে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম ম্যাচ কার্যত অ্যাসিড টেস্ট ছিল রোহিতের কাছে। সেখানে চূড়ান্ত সফল রোহিত নতুন অবতারে দেখে মুগ্ধ পাক পেসার।
২০১৩ সালে বাংলাদেশে জিমে রোহিতের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের অভিজ্ঞতাও টাটকা রাওয়ালপিণ্ডি এক্সপ্রেসের কাছে। শোয়েবের দাবি, সে–সময়ই তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, রোহিত ভারতের সেরা ব্যাটসম্যানদের তালিকায় নিজেকে তুলে আনবে। শুধু রোহিতকে নিজের দক্ষতা এবং প্রতিভার ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে। ইউটিউবে আপলোড করা এক ভিডিওয়োতে শোয়েবের স্মৃতিচারণ, ‘‌সেবার বাংলাদেশে রোহিতকে ওর নাম জিজ্ঞাসা করায় বলেছিল, স্যর আপনি রোহিত শর্মাকে চেনেন?‌ সে–সময় ওকে বলেছিলাম, ভারতের গ্রেট ব্যাটসম্যান হওয়ার মশলা তোমার মধ্যে রয়েছে। শুনে রোহিতের প্রতিক্রিয়া ছিল, ভাই তুমি সত্যি এটা বিশ্বাস কর?‌ ওকে আত্মবিশ্বাসটা ধরে রাখতে বলেছিলাম।’‌
ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট রোহিতকে দিয়ে ওপেন করানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর থেকেই বীরেন্দ্র শেহবাগের সঙ্গে তাঁর তুলনা শুরু হয়েছে। সেই তুলনায় অন্য মাত্রা পায় অধিনায়ক বিরাট কোহলির ‘বীরুর ভূমিকায় রোহিতকে দেখতে চাই’‌ মন্তব্যের পর। আর এ প্রসঙ্গে শোয়েব বলেন, ‘‌রোহিতের টেকনিক বীরুর থেকে অনেক ভাল। বীরু আগ্রাসী মানসিকতায় মাঠে নেমে বোলারদের শাসন করত। রোহিতের টাইমিং এবং শট বাছাইয়ের বৈচিত্র‌্য অনবদ্য। আমার মতে ও ভারতের ইনজামাম–উল হক। আগে রোহিতকে দেখে মনে হত অন্যান্য ফরম্যাটে নিজেকে যেভাবে সেরা হিসেবে তুলে আনতে চাইত, সেভাবে টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে ওর মধ্যে কোনও উন্মাদনা ছিল না। মানসিকতা বদলে ফেলায় কী হয়েছে সেটা আমরা সকলেই দেখতে পাচ্ছি। এখান থেকে রোহিত নিজেকে টেস্টেও গ্রেট হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবে বলেই আমার বিশ্বাস।’‌
শুধু রোহিত নয়, ভারতীয় পেসার মহম্মদ সামির প্রশংসাও শোনা গেল শোয়েবের মুখে। তাঁর দাবি, রিভার্স সুইংেয়র নতুন সম্রাট হয়ে উঠবেন সামি। বিশাখাপত্তনমে জয়ে রোহিতের মতো সামিও বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন। শোয়েবের কথায়, ‘‌বিশ্বকাপ থেকে ভারতের বিদায়ের পর একদিন সামি আমায় ফোন করে নিজের পারফরমেন্স নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছিল। তখন ওকে মন খারাপ না করে আসন্ন হোম সিরিজের জন্য নিজের ফিটনেসের ওপর জোর দিতে বলেছিলাম। বলেছিলাম, তোমাকে ভয়ানক পেসার হিসেবে দেখতে চাই। ওর মধ্যে সিম–সুইং দুটোই রয়েছে। পাশাপাশি রিভার্স সুইং করানোর ক্ষমতা। উপমহাদেশে হাতেগোনা বোলারদের মধ্যে এই ক্ষমতা আছে। এখন সকলেই দেখতে পাচ্ছে ওর ক্ষমতা। বিশাখাপত্তনমে প্রাণহীন ২২ গজে ও উইকেট তুলে নিয়েছে। সামির জন্য আমি দারুণ খুশি।’‌
শুধু সামি নয়, প্রয়োজনে পাকিস্তান বোলারদের তিনি পরামর্শ দিতে প্রস্তুত। কিন্তু কোনও পাক বোলারই তাঁর পরামর্শ চান না বলে হতাশ শোয়েব। কিংবদন্তি পাক পেসারের কথায়, ‘‌সামির মতো ভারতীয় বোলার যেখানে ফোন করে পরামর্শ চাইছে, সেখানে দেশের কোনও পেস বোলার কখনওই কীভাবে বোলিংয়ের উন্নতি করা যায় সে সব নিয়ে আমার সঙ্গে কোনও কথা বলতে আসে না। পাকিস্তান ক্রিকেটের প্রেক্ষাপটে এটা অত্যন্ত দুঃখের। অথচ নাসিম শাহ, মুসা খান, হ্যারিস রাউফের মতো নবাগতদের মধ্যে বিশ্বের দ্রুততম বোলার হয়ে ওঠার মশলা রয়েছে। আশা করব ভবিষ্যতে হয়তো ওরা আমার থেকে পরামর্শ চাইবে।’‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top