অগ্নি পান্ডে: তুমুল ব্যস্ত। কিন্তু মন পড়ে রয়েছে ইডেনেই। বুধবার সকালে কলকাতা থেকে হায়দরাবাদ। গভীর রাতে হায়দরাবাদ থেকে দিল্লি। সেই রাতেই রাজধানীর এক আইনি সংস্থার সঙ্গে বৈঠক। তারপর বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লিতেই ম্যারাথন মিটিং সেরে বিকেলের উড়ানে কলকাতায় নেমেই সোজা ইডেনে। কলকাতায় ফেরার কথা ছিল না। যাওয়ার কথা ছিল রাজকোটে। ভারত–বাংলাদেশ টি২০ ম্যাচে। কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি ইডেনে হাজির গোলাপি বলের টেস্টের প্রস্তুতি দেখতে। আচমকা আসায় চমকে গেলেন সিএবি–র অনেকেই। বিকেলে ইডেনে পৌঁছেই সৌরভ চলে গেলেন বাইশ গজের কাছে। জানা িছল না, তাই কিছুক্ষণ আগেই বাইশ গজের সব কটা স্ট্রিপে জল দেওয়া হয়ে গেছে। অগত্যা সৌরভ কিউরেটরের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ আলোচনা সেরে নিলেন। কোথায় কী হবে, কী করতে হবে তা নিয়ে। এত ভিভিআইপি দর্শক থাকছেন ঐতিহাসিক টেস্টে। তাই প্রত্যেককেই নিজের সেরাটা দিতে হবে। বাইশ গজ পরিদর্শন করার পরই বোর্ড সভাপতি হাঁটা লাগালেন তাঁর স্বপ্নের প্রোজেক্ট সিএবি ইনডোরে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় তৈরি হচ্ছে অত্যাধুনিক ইনডোর। সেটাই ভাল করে পর্যবেক্ষণ। বারবার চোখ রাখলেন মোবাইলে ইনডোরের যাবতীয় নকশায়। প্রশ্নের উত্তরে বললেন, ‘শেষ মুহূর্তে রাজকোট বাতিল করতে হল। এখানে সময় দিতে হবে। এত বিশাল করে সবকিছু হচ্ছে। কলকাতায় থাকতে হবে। তাই চলে আসা। শুনেছেন তো, বেশিরভাগ টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে অনলাইনে। আমার আশা, টেস্টের সময় ইডেন পুরো ভরে যাবে। মনে রাখার মতো টেস্ট ম্যাচ হবে।’ সিএবি–তে যাবতীয় প্রস্তুতি ঘুরে দেখতে দেখতেই একটা ভাবনা তাঁর মাথায় খেলে গেল। ইডেনের যে সব দেওয়ালে খানিকটা নোংরা ধরেছে, কালশিটে পড়েছে সেই সব দেওয়ালগুলোয় ইডেনকে নিয়েই চিরস্থায়ী ব্র্যান্ডিংয়ের পরিকল্পনার কথা বলে ফেললেন সৌরভ। তিনি চাইছেন চিরস্থায়ী ব্র্যান্ডিং করা হোক সেই সব দেওয়াল এমন কিছু। সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশও দিয়ে দিলেন। গোলাপি বলের টেস্টের সময়ে যতটা সম্ভব তৈরি করা তারপর টেস্ট মিটে গেলে পাকাপাকি ব্র্যান্ডিংয়ের নির্দেশ দিয়ে গেলেন সৌরভ গাঙ্গুলি।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top