আজকালের প্রতিবেদন: বক্তৃতা শেষ করে নগরপাল রাজীব কুমারের পাশে গিয়ে সদ্য বসেছেন। তারপর কী মনে হল কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই উঠে গিয়ে বসলেন প্রবাদপ্রতীম প্রদীপ ব্যানার্জির ঠিক পাশে। বেশ কিছুক্ষণ কথা বললেন পি কে–র সঙ্গে। তার আগেই নিজের বক্তৃতায় যথেষ্ট সম্মানজ্ঞাপন করেছেন পি কে–কে। ‘‌এখানে এমন এক ব্যক্তিত্ব বসে রয়েছেন পি কে ব্যানার্জি স্যর, যাকে দেখে গোটা দেশের ক্রীড়াবিদরা অনুপ্রাণিত হয়ে থাকে। আমিও হই। ওনাকে একই মঞ্চে দেখে আমি গর্বিত।’‌
কী কথা হল পি কে ব্যানার্জির সঙ্গে শচীন তেন্ডুলকারের?‌ খোঁজ নিতে জানলাম, সত্যি এটা শচীনের পক্ষেই সম্ভব। চিরকাল একইরকম থেকে গেলেন। এবার স্বয়ং প্রদীপ ব্যানার্জির মুখ থেকে শোনা যাক। ‘‌আমার পাশে বসেই জানতে চাইল স্যর আপনার কপালে চোটের দাগ কেন?‌ তখন শচীনকে জানাই, আজ সকালে বাড়িতে পড়ে গেছিলাম ব্যালান্স ঠিক রাখতে না পেরে। তখনই কেমন যেন উদ্বিগ্ন হয়ে গেল শচীন। বারবার করে নিষেধ করল লাঠি ছাড়া অথবা কাউকে ছাড়া হাঁটাচলা করতে। আমি সত্যি অভিভূত। আমার কপালের কাটা দাগটা ওর নজর এড়িয়ে যাওয়ারই কথা। কিন্তু শচীন বলেই এটা সম্ভব। আমার সম্পর্কে ওর খোঁজ নেওয়া সত্যি মুগ্ধ করেছে।‌’‌
পি কে–ও উল্টে শচীনের কাছে দ্রোণাচার্য রমাকান্ত আচরেকরের শারীরিক–সমাচার জানতে চেয়েছেন?‌ শচীন তাঁকে জানিয়েছেন, স্যর ঠিকঠাক রয়েছেন। বার্ধক্যজনিত সমস্যা রয়েছে। তবে বাড়িতে সবসময় দু’‌জন নার্স দেখাশোনা করে থাকেন আচরেকরকে। শচীন জানতে চেয়েছেন পি কে–কে কেউ বাড়িতে দেখাশোনা করেন কি না?‌ জবাবে প্রদীপ ব্যানার্জি জানিয়েছেন, বাড়িতে তাঁকে সবসময়ই একজন দেখাশোনা করে থাকেন। সেদিক থেকে কোনও সমস্যা নেই। আলিপুর বডিগার্ড লাইনের অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় শচীন পি কে–কে বলে গেছেন, ‘‌স্যর আপনাকেও সুস্থ থাকতে হবে। আপনার প্রয়োজন দেশের এখনও রয়েছে।’‌‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top