ষষ্ঠী বিশ্বাস, শিলিগুড়ি, ১৩ জানুয়ারি- জাতীয় মহিলা টি২০ দলের নতুন মুখ রিচা ঘোষ কলকাতা থেকে ঘরে ফিরতেই বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়ল শিলিগুড়ি। রিচার প্রধাননগরের মার্গারেট হাইস্কুল থেকে বের হল র‌্যালি। শামিল হলেন বর্তমান ও প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষক–শিক্ষিকারা। 
পাসপোর্ট করানোর জন্য রিচা সোমবার সকালে সুভাষপল্লীর হাতিমোড়ের বাড়িতে আসে। খবর চাউর হতে সংবর্ধনা দিতে আসেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য ও বিরোধী দলনেতা রঞ্জন সরকার। ফুলের তোড়া ও মিষ্টি নিয়ে হাজির হন উত্তরবঙ্গ স্পোর্টস বোর্ডের ভাইস–চেয়ারম্যান নান্টু পাল। শিলিগুড়ি মহকুমা ক্রীড়া পরিষদের দুই সহ–সচিব সজল নন্দী ও মনোজ ভার্মা–সহ অন্যরা। হাজির হন স্থানীয় কাউন্সিলর মৌসুমী হাজরাও। দেখা যায় জেলা বিদ্যালয় ক্রীড়া পর্ষদের সভাপতি মদন ভট্টাচার্য–‌সহ একঝাঁক ক্রীড়া সংগঠকদেরও। 
মাটিগাড়ার পাসপোর্ট অফিসে কাজ মিটিয়ে দুপুরে রিচা যায় স্কুলে। দেখা করে সহপাঠী ও শিক্ষক–শিক্ষিকাদের সঙ্গে। বিকেলে বাঘাযতীন অ্যাথলেটিক ক্লাবের কোচিং সেন্টারে খেলোয়াড় ও কোচদের সঙ্গে সময় কাটায়। ক্লাব সভাপতি উৎপল ব্যানার্জি, সচিব কুন্তল রায়রা রিচাকে সংবর্ধনা দেন।
রিচা জানায়, শচীন তেন্ডুলকারের সোজা সোজা ব্যাটের ড্রাইভ তাকে মুগ্ধ করে। সম্প্রতি ওডিশার কটকে চ্যালেঞ্জার ট্রফিতে ভাল পারফরমেন্স তার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে। পেস হোক বা স্পিন— কোনও অবস্থাতেই বিপক্ষের বোলারকে রেয়াত করতে চায় না ষোড়শী কন্যা। ভারতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার কৃতিত্ব বাবাকে দিয়েছে রিচা। তার কথায়, ‘‌ছোটবেলায় বাবা ছিল আমার প্রথম কোচ। তারপর বরুণ ব্যানার্জির কাছ থেকে ক্রিকেটের পাঠ নিয়েছি।’‌

শিলিগুড়ির বাড়িতে মায়ের সঙ্গে রিচা। সোমবার। ছবি: শৌভিক দাস

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top